3 মাস বয়সী শিশুর যত্ন – নিশ্চিত ফলদায়ী পরামর্শ

3 মাস বয়সী শিশুর যত্ন – নিশ্চিত ফলদায়ী পরামর্শ

আপনার বাচ্চা 3-মাস বয়স পার হলে, আপনি একটু পরিত্রাণ পেতে শুরু করবেন। সে খুব ছোট থাকার সময় যেভাবে অবিরত কান্নাকাটি করত তা অনেকটা কমে আসে এবং আপনি হয়তো কিছু অ-মৌখিক সংকেতও বুঝতে শুরু করেন। সে যা অনুভব করে তা প্রকাশ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ভঙ্গি করে। তার বৃদ্ধি অব্যাহত রাখার জন্য, তিন মাসের শিশুর যত্নের কিছু পরামর্শ রয়েছে যেগুলি যখন আপনি কোনও সমস্যার মুখোমুখি হন তখন আপনি কাজে লাগাতে পারেন।

aniview

কিভাবে আপনার 3 মাস বয়সী শিশুর যত্ন নিতে হবে?

আপনি আপনার ছোটটির যত্নের জন্য এই জিনিসগুলি মনে রাখুন।

1. কখন আপনার শিশু ক্ষুধার্ত হয় বা কখন তার ঘুম পায় তার একটি হদিশ রাখুন

বেশিরভাগ শিশু 12 সপ্তাহের পরে খাওয়া ও ঘুমের বিষয়টি নিজে নিজেই উপলব্ধি করতে পারে। আপনার সন্তান এখন ভিন্ন ভাবে কান্নাকাটি করবে, যা থেকে আপনি বুঝতে পারবেন যে সে ক্ষুধার্ত অথবা খিটিখিটে হবে যদি সে ঘুমাতে না পারে, বা যদি তার ডায়াপারটি ভিজে থাকে। আপনার শিশু যদি বোতলে খায়, তাহলে সে স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বেশি খাওয়ার ঝোঁক দেখাবে, যার ফলে সে হয়তো দীর্ঘ সময় ধরে ঘুমাতে পারে, এমনকি সারা রাত জুড়েও। বুকের দুধ খাওয়ানো শিশুরা ঘুমের মধ্যে একবার উঠে পড়ে, কিন্তু এই কারণে বোতলে খাওয়ানোতে পরিবর্তন করার দরকার নেই।

2. নিশ্চিত করুন যে আপনার শিশু সব সময় নিরাপদ থাকে

আপনার শিশু তার অঙ্গগুলি, বিশেষ করে তার হাতগুলিকে উপলব্ধি করতে শুরু করবে। সে এই বিষয়টি বুঝতে শুরু করবে যে তার হাতের উপর কিছুটা নিয়ন্ত্রণ রয়েছে। এর ফলে সে যা পায় তা ধরবে এবং তার মুখের মধ্যে পুরবে। তার বিছানাতে বা তার কাছাকাছি কোথাও কোনো ধারালো বস্তু বা অস্বাস্থ্যকর জিনিস যেন না থাকে তা নিশ্চিত করুন। ছোট জিনিস সহজেই তার গলার মধ্যে ঢুকে যেতে পারে এবং তার গলায় আটকে যেতে পারে। ভ্রমণ করার সময়, গাড়ীর সীট থেকে সে যেন যে কোনও বস্তুকে ধরতে না পারে এবং সীটে নিরাপদে থাকে তা নিশ্চিত করুন।

 নিশ্চিত করুন যে আপনার শিশু সব সময় নিরাপদ থাকে

3. বাধা ছাড়াই যোগাযোগ চালিয়ে যেতে হবে

3 মাস বয়সী শিশুর যত্ন নেওয়া এক জিনিস, কিন্তু তাকে সামাজিক ব্যক্তিত্বতে রূপান্তর করা একটি ভিন্ন খেলা। অনেক গবেষণায় দেখা যায় যে, যে সব বাবা-মা তাদের বাচ্চাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারে বা তাদের সাথে কথোপকথন করতে পারে, তাদের বাচ্চাদের সামাজিক উপলব্ধি ভালো হয়, আইকিউ ভালো হয়, এবং তারা শব্দভান্ডার দ্রুত শিখে নিতে পারে। যখনই আপনি শিশুর সাথে যোগাযোগ করবেন তখন তার সাথে কথা বলুন। তাকে জানান যে আপনি তার ডাইপার পরিবর্তন করছেন, এবং সে একটি বড় পটি করেছে, এবং এখন নতুন ডাইপারটি একদম তাজা ও আরামদায়ক। তাকে রঙিন বই দেখান এবং সেগুলিকে থেকে গল্প বানিয়ে শোনান।

4. কান্নাকাটি এবং চিৎকার করার সময় তাদের ছেড়ে যাবেন না

যদিও কিছু বাবা-মা বিশ্বাস করে যে, যদি শিশু অপ্রয়োজনীয়ভাবে কান্নাকাটি করে, তাকে কাঁদতে দিতে হবে এবং সে কিছুক্ষণ পরে কান্নাকাটি বন্ধ করবে, কিন্তু এটি সাধারণত 3 মাস বয়সী বাচ্চাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। এই শিশুরা কান্নাকাটি করে শুধু ক্ষুধা, অস্বস্তি, বা ঘুমের মতো কারণে। এগুলির প্রতিটি ক্ষেত্রে পিতামাতার মনোযোগ দেওয়ার প্রয়োজন কারণ এটিই একমাত্র পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনার বাচ্চা আপনার সাথে কথা বলতে পারে। যদি শিশু কাঁদতে থাকে এবং কেউ তার কাছে না আসে, সে অনিরাপদ বোধ করতে শুরু করে এবং আরও কান্নাকাটি করতে পারে যতক্ষণ না সে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এই বয়সে অত্যধিক মনোযোগ দিলে বাচ্চা নষ্ট হয়ে যায় না। কখনও কখনও একটি শিশু শুধু আদর পেতে চায়, এবং সেটি একটি ন্যায্য প্রয়োজন।

কান্নাকাটি এবং চিৎকার করার সময় তাদের ছেড়ে যাবেন না

5. শিশুকে বাইরে নিয়ে যেতে হলে আগে থেকে অনেক প্রস্তুতি প্রয়োজন

আপনি হয়তো আপনার বাচ্চাকে ছোট করে একটু ঘুরিয়ে আনতে চান, অথবা লম্বা পিকনিকে নিয়ে যেতে চান বা অন্য কোনো শহরে যেতে চান। এই সব ক্ষেত্রে আপনার সাথে প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি বহন করতে হবে। শিশুর যেকোনো সময়ে কী প্রয়োজন হতে পারে তা সঠিক নির্ধারণ করা যায় না, এবং তাই অপ্রস্তুত না থাকার চেয়ে বেশী প্রস্তুতি নেওয়া ভাল। আপনি যদি তাকে চারপাশে ঘোরাতে নিয়ে যান তবে একটি বেবি প্র্যাম ব্যবহার করুন যেটিতে প্রচুর পরিমাণে জিনিসপত্র রাখা যেতে পারে। গ্রীষ্মকালে কোনো শহরে ভ্রমণ করলে, সূর্য থেকে তাকে রক্ষা করার জন্য বায়ুচলাচলের উপযুক্ত জামাকাপড় এবং টুপি পরান। অপরিহার্য জিনিসগুলি, যেমন ডায়াপার, খেলনা, বোতল, এবং ওয়াইপ সবসময় আপনার সাথে রাখুন।

6. খেলার সময়টি যত্নের সময়ও হতে পারে

প্রায় 12 সপ্তাহ বয়সের পর, বাচ্চারা আগের চেয়ে বেশি জেগে থাকে। তারা নিজেদেরকে ব্যস্ত রাখতে পারে তবে মাঝে মাঝে উদ্দীপনার প্রয়োজন হয়। প্রতিদিন, আপনার ছোটটির সঙ্গে খেলার জন্য কিছু সময় রাখুন। সে তার খেলনা দিয়ে খেলতে পারে অথবা আপনি তাকে একটি গল্প বলতে পারেন। আপনার প্রিয় সঙ্গীত শুনুন এবং সেটির সাথে গাইতে থাকুন। আপনার শিশুকে আপনার গুণগুণ করা শুনতে দিন। এই সমস্ত ক্রিয়াকলাপ আপনাদের দুজনের মধ্যে বিশ্বাস এবং স্নেহের একান্ত ব্যক্তিগত বন্ধন গড়ে তোলে।

খেলার সময়টি যত্নের সময়ও হতে পারে

7. একটি ভালো রুটিন সবাইকে সাহায্য করে

বাবা-মা বা শিশু কেউই অপ্রত্যাশিত কিছু পছন্দ করে না। খাওয়া, ঘুমানো এবং খেলার নির্দিষ্ট সময় ঠিক করলে, আপনার বাচ্চা ধীরে ধীরে তাদের নির্দিষ্ট সময়ে প্রত্যাশা করতে পারে এবং তার কাছে এগুলি অপ্রত্যাশিত হবে না। এটি তাকে নিরাপদ এবং সুরক্ষিত মনে করায় এবং তার ক্রমাগত বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।
বাচ্চাদের অনেক যত্ন এবং মনোযোগের প্রয়োজন এবং 12 সপ্তাহ বয়সী বাচ্চার যত্ন নেওয়ার ক্ষেত্রে, যেরকম প্রয়োজন সেভাবে সবকিছু এখনও সুসংগঠিত নয়। আপনি নিজেকে ঠান্ডা রাখলে এবং উদ্বিগ্ন না হলে, আপনার পথে আসা যে কোনো সমস্যা মোকাবিলা করতে সুবিধা হবে। মাতৃত্বের অনুভূতি উপভোগ করুন এবং মনে রাখুন যে আপনি প্রতিটি পরিস্থিতিতে আপনার সন্তানের জন্য একজন ভালো মা হতে পারবেন।