আপনার 8 সপ্তাহ বয়সের সন্তান- বিকাশ,মাইলস্টোন এবং যত্ন

আপনার 8 সপ্তাহ বয়সের সন্তান- বিকাশ,মাইলস্টোন এবং যত্ন

আপনি আপনার সন্তানের জন্ম দিয়েছেন প্রায় দুই মাস হয়ে গেল এখন আপনার মনে প্রশ্ন দেখা দেবে যে আপনার বাচ্চাটি কত তাড়াতাড়ি বৃদ্ধি পাবে।তার ওজনটাই বা কত হবে এবং সাধারণভাবে তার থেকে আপনি কি কি আশা করতে পারেন।এখনে আপনার 8 সপ্তাহ বয়সের সন্তানের ব্যাপারে সমস্ত কিছু রইল যা আপনার জানার প্রয়োজন।

aniview

আপনার 8 সপ্তাহের শিশুর বিকাশ

আপনার শিশুটি প্রায় দুই মাসের কাছাকাছি নিরবচ্ছিন্ন পরিবর্তন এবং বিকাশের মধ্য দিয়ে চলছে।এখন আপনাকে তার মেজাজ এবং ব্যবহার বুঝে চলতে হবে আর তার খাওয়ানোর, স্নান করানোর, এবং তার সাথে খেলার সময়ের একটা রুটিন প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।অন্যান্য মায়েরা কি করছেন তার সাথে প্রতিযোগীতা করার দরকার নেই।যা করছেন সেই বিষয়ে আপনি আত্মবিশ্বাসী নাও হতে পারেন কিন্তু মনে রাখবেন আপনার সন্তানই হল আপনার সবথেকে বড় বিচারক আপনার কাজের।বাচ্চারা খুব ভাল থাকে যদি তাদের ভালোভাবে খাওয়ানো হয়,ঠিকভাবে ঘুমাতে পারে এবং যদি তাদের ডায়াপার সঠিক সময়ে বদলে দেওয়া হয়।

আপনার 8 সপ্তাহ বয়সের বাচ্চার ওজন তার জন্মের সময়ের ওজনের থেকে 900গ্রাম থেকে 1.3 কিলোগ্রাম পর্যন্ত বৃদ্ধি পাওয়া উচিত।তার দৈর্ঘ্য 5 সেমির মত বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে তার চিবুকে,পেটে,পা এবং বাহুতে পেশীর বৃদ্ধির চিহ্ন দেখা যাবে।আপনি এটাও লক্ষ্য করবেন যে আপনার 8 সপ্তাহের শিশুর বৃদ্ধির দৌড়ের জন্য বিকেল বেলায় তাকে ঘন ঘন খাওয়াতে হচ্ছে এবং রাতে অতি ব্যাস্ত ভাবে খাওয়াতে হচ্ছে।

8সপ্তাহের শিশুর মাইলস্টোন গুলি

  • আপনার সন্তান এখন থেকে তার চারিপাশের জিনিসগুলোর প্রতি অনুসন্ধিৎসু হয়ে উঠবে।সে এখন থেকে মানুষজন ও আশেপাশে চলমান বস্তু গুলোর প্রতি তাকিয়ে থাকবে,এবং অপরিচিত বস্তুগুলোর প্রতি আকর্ষণ ব্যাক্ত করবে।
  • বাচ্চারা বুঝতে পারে যে হাসি হচ্ছে মজার জিনিস।আপনি তাকে হাসতে দেখবেন যখন আপনি তাকে আলিঙ্গন করবেন বা যখন সে আপনার গলা শুনতে পাবে অথবা যাদের সে পছন্দ করে তাদের দেখতে পাবে।
  • অনেক গুলো খেলনার মধ্য তারা কয়েকটাকে পছন্দ করতে শুরু করবে,যখন তারা তাদের পছন্দের খেলনা দেখতে পাবে তাদের মুখ হাসিতে ভরে যাবে।
  • তাদের দৃষ্টি শক্তির অনেক উন্নতি হয় তারা 20 সেমি দুরের জিনিস দেখতে পায়।
  • বাচ্চারা এখন তাদের হাত এবং পা সম্বন্ধে সচেতন হয়ে উঠেছে। তাই প্রচুর পা ছোঁড়া এবং হাত দিয়ে জাপটে ধরা প্রত্যাশা করবেন। তাদের হাত এবং পা সঞ্চালনা প্রথম দিকে অগোছালো হলেও ধীরে ধীরে তার ওপর নিয়ন্ত্রণ এসে যাবে।
  • 8 সপ্তাহ বয়সে সাধারণত দাঁত ওঠে না,তবে তাদের লালাগ্রন্থি দ্রুত বৃদ্ধি পায়।সেই জন্য তাদের মুখ দিয়ে অনবরত লালা ঝরতে দেখার অভিজ্ঞতার প্রত্যাশা করতে পারেন।8সপ্তাহের শিশুর মাইলস্টোন গুলি

খাওয়ানো

দুই মাস বয়সী আপনার বাচ্চাটিকে 24 ঘন্টার মধ্যে অন্তত 6 বার খাওয়াতে হবে।এই দশায় তাদের বৃদ্ধির দৌড় শুরু হয়ে যায় ফলে বিকালের দিকে তাদের বারবার খাওয়াতে হয়(ক্লাষ্টার ফিডিং) যাতে তাদের পুষ্টির চাহিদা মেটে।যারা প্রথম মা হয়েছেন ক্লাষ্টার ফিডিং এর ক্ষেত্রে যারা বুকের দুধ খাওয়ান তারা চিন্তিত থাকেন যে তাদের বাচ্চা যথেষ্ট পরিমাণ দুধ পাচ্ছে কিনা। তাদের জন্য বলা যায় যদি আপনার বাচ্চার বৃদ্ধির হার 150-200 গ্রাম প্রতি সপ্তাহে থাকে এবং সে যদি দিনে 6 বার বা তার বেশী তার ন্যাপি ভিজিয়ে ফেলে তাহলে চিন্তার কারণ নেই।যখন তারা যথেষ্ট পরিমাণে খাবার পায় তখন তারা খুশি এবং সজাগ থাকে।

যদি সে বোতলের দুধ খায় তাহলে দেখবেন যে তার খিদে একটু বেড়ে গেছে এবং এক বোতল শেষ করার পর সে আরেকটু খাবার জন্য তাকিয়ে থাকে।আপনি আপনার ডাক্তার বাবুর সাথে কথা বলে তার বয়স এবং ওজন অনুযায়ী দুধের পরিমাণ ঠিক করুন।এটাও গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি ফর্মূলা দুধ আর জলের অনুপাত বদলাবেন না মেশানোর সময়।যতটা ডাক্তারবাবু বলেছেন ততটাই দিন অতিরিক্ত অংশ ফেলে দিন।

ঘুমানো

আপনার 8 সপ্তাহ বয়সী সন্তানটি এখন থেকে আগের 18 ঘন্টার পরিবর্তে 11-15 ঘন্টা ঘুমাবে।যদিও মাঝরাত্রে তাদের ঘুম ভেঙে যেতে পারে তারা সাধারণত একটানা 5-6 ঘন্টা ঘুমাতে পারে।আবার কিছু বাচ্চারা অনেক সময় এর থেকেও বেশী সময় ধরে ঘুমায় তাদের একটা নির্দিষ্ট ঘুমের রুটিন এর ভবিষ্যৎবাণী করা যায়।অন্যান্যরা অনেক বেশী সচেতন এবং যখন তাদের বাবা মায়েরা তাদের ঘুম পাড়াতে চায় তারা সেটাতে বাঁধা দেয়।যাইহোক 8 সপ্তাহ বয়সের বাচ্চাদের ঘুমের সময়সূচীর ওপর খুব বেশী নিয়ন্ত্রণ থাকে না আপনাকে সেই মত আপনার কাজকর্ম ঠিক করে নিতে হবে।

যাইহোক,এটা উপযুক্ত কাজ হবে যে আপনার বাচ্চাটিকে তার খাটে ঘুম পাড়ানোর ব্যবস্থা করা,এতে সে নিজে নিজে ঘুমিয়ে পড়ার অভ্যাস তৈরী করতে পারবে পরবর্তী মাস গুলোর জন্য।যে সব বাচ্চারা তাদের বিছানায় শোবার পর ঘুমিয়ে পরে তারা তাদের বাবা মার উপর নির্ভরশীল হয়ে থাকে ঘুম পাড়াবার বিষয়ে। নিজে থেকে ঘুমানোর কৌশল তারা আয়ত্ত করতে পারে না যখন তারা অনিদ্রায় বা হাল্কা ঘুমের মধ্য দিয়ে যায়।

আচার আচরণ

8 সপ্তাহ বয়সের আপনার বাচ্চার চলন এখনও কিছুটা এলোমেলো এবং প্রক্ষেপণমূলক হয়।বাচ্চারা এই সময়কালে ঝুমঝুমি বা কোনো খেলনা মুঠো করে ধরতে পারে না, তবে এই মাইলস্টোনটা খুব দূরে নেই।বাচ্চাটি এখনও অবধি তার অনিয়ন্ত্রিত ভাবে আঁকড়ে ধরা অভ্যাস পুরোপুরি ভাবে কাটিয়ে উঠতে পারেনি। যদিও তার মধ্যে কোন কিছুকে নিয়ন্ত্রিত ভাবে ধরবার প্রবণতা তৈরী হতে থাকে।এটা খুব ভাল ভাবনা যে আপনি অনবরত আপনার বাচ্চার সাথে কথা বলে চলুন সে বুঝতে না পারলেও। যাইহোক কিছুদিনের মধ্যে আপনি লক্ষ্য করবেন সে হেসে বা কু আওয়াজ করে প্রত্যুত্তর দেবে।গবেষণায় দেখা গেছে যে,শিশুরা অনুসরণ করে কথা বলার ছন্দ,আশপাশের শব্দ এবং বিশেষত আপনার কথা। যদি আপনার বড় বয়সের আর সন্তান থাকে তাহলে ওর সাথে তাকে কথা বলতে দিন। হালকা খেলাধূলা এবং ইতিবাচক ভালবাসা আপনার বাচ্চার সামাজিক দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করবে।আপনি এটাও লক্ষ্য করবেন যে আপনার বাচ্চাটি বিভিন্ন মুখ চিনতে পারছে, এবং যাদের চশমা আছে তাদের দিকে একটানা তাকিয়ে থাকছে।

আচার আচরণ

কান্না

এটাতে অবাক হবার কিছু নেই যে আপনার বাচ্চাটি এখন স্থির হয়নি এবং সে যখন তখন কাঁদতে শুরু করে। একটানা কান্না বাচ্চাদের ক্ষেত্রে খুব বেদনাদায়ক এটা তাদের ক্লান্ত করে তোলে মেজাজ খারাপ করে দেয় সেই বিষয়ে তারা শান্ত হতে চায় না।সবথেকে বেশী কাঁদে দিনের মধ্যভাগে এবং বিকালের দিকে।তাই আপনি সতর্ক থাকুন যেন তাদের খাওয়া খুব ভাল ভাবে হয় এবং তারা যেন আরামদায়ক ভাবে থাকে।মাঝেমাঝে পিতা মাতারা লক্ষ্য করেন যে তাদের বাচ্চাটি কয়েকদিন ধরেই অসহিষ্ণু থাকে এবং তারা ব্যাতিব্যাস্ত হয়ে পড়েন এর কারণ জানার জন্যে। আপনি যদি ভাবেন এটা পেটব্যাথার (কোলিক)কারণে হচ্ছে তাহলে দ্রুত শিশু-বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করবেন তা জানতে।

8সপ্তাহের শিশুর পরিচর্যার পরামর্শ

  • এই বয়সের বাচ্চারা আগের মতই লালা বের করে ফেলে বিশেষ করে তারা যখন বুকের দুধ খাওয়ার সাথে সাথে তারা বাতাস টেনে নেয় তার জন্য এটি ঘটে থাকে।তাই নিজেকে বাঁচাবার জন্য হাতের কাছে কম্বল রাখুন।
  • ঘরের বিভিন্ন বস্তু তাদের দেখতে দিন। এটা তাদের স্পর্শানুভূতি এবং দৃষ্টি শক্তির ভিত তৈরী করবে।
  • আপনার নজরদারীর মধ্যে তাদের মেঝেতে ছেড়ে দিন সেটা তাদের ঘাড়, কাঁধ এবং বুকের মাংস পেশীকে সুগঠিত করে তুলতে সাহায্য করবে।
  • যেহেতু তারা প্রায়শই ঢেকুর তোলে এমনকি তাদের ঘুমের মধ্যেও আপনি খেয়াল করবেন যে বিছানার চাদর প্রায়ই ভিজিয়ে ফেলে।বাচ্চাদের স্লিপিং ব্যাগ এক্ষেত্রে ভাল কাজ দেয়।
  • আপনি যদি এখন থেকে আপনার বাচ্চাকে বোতলের দুধ খাওয়ানো শুরু করার কথা ভাবতে শুরু করেন তাহলে ধীরে ধীরে তাকে ফিডিং বোতল দেওয়া অভ্যাস করুন।আপনার পরিবারের অন্য কেউ বা আপনার বাচ্চার তত্ত্বাবধায়ক এই বোতলে দুধ খাওয়ানোর কাজটা করতে পারেন।

8সপ্তাহের শিশুর পরিচর্যার পরামর্শপরীক্ষা নিরীক্ষা এবং টিকাকরণ

আপনার বাচ্চার 6 থেকে 8 সপ্তাহ বয়সের মধ্যে সাধারন চেক আপ দরকার তার বৃদ্ধির হার,ওজনের বৃদ্ধি,এবং সংক্রমণ সংক্রান্ত বিষয় গুলো জানতে।8 সপ্তাহ বয়সেই আপনার বাচ্চার অনাক্রম্যতার জন্য প্রথম ভ্যক্সিন প্রয়োজন কিছু বিশ্রি জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়বার জন্যে।প্রথমবার বলে এটা একটা কঠিন ব্যাপার,তাই আপনার সঙ্গীকে বা আপনার পরিবারের অন্য কেউ বা কোনো বন্ধুকে নিয়ে যান সাথে করে।

শিশুদেরকে তাদের প্রথম ডোজ দেওয়া হয় যেটি হল 1 এর মধ্যে 5 ধরণের,এটা ডিপ্থেরিয়া,টিটেনাস, হুপিং কাশি, পোলিও এবং হিব(হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা টাইপ বি)ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে।তাদের এই সময়ে নিমোকক্কাল ইঞ্জেকশান দেওয়া হতে পারে যা তাকে মেনিজাইটিস এবং সেপ্টিমেসিয়ার ব্যাক্টেরিয়া গুলির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সাহায্য করে।ওরাল রোটাভাইরাস ভ্যাক্সিন দেওয়া হয় ডায়ারিয়া এর জন্য দায়ী রোটাভাইরাসের আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য।

খেলাধূলা এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ

এখানে কিছু সাধারণ খেলার উল্লেখ করা হল যা এই বয়সের উপযোগী।

1.সোয়াটিং খেলা

আপনার দুই মাস বয়সি বাচ্চাটি তার আয়ত্তের মধ্যে থাকা বস্তুগুলোকে আঘাত করতে চায় বিশেষ করে যেগুলো উজ্জ্বল বর্ণের আকর্ষক বস্তু।এটা তার হাত এবং চোখের দৃষ্টিশক্তির সামঞ্জস্য আনতে সাহায্য করে তার সাথে সাথে বাহুর শক্তি বাড়ায়।আপনার দরকার ছাদে আটকানো হুকের একটা স্ক্রু,কিছু সুতো,নরম সাধারণ আলো জ্বলা খেলনা,একটা কোট ঝোলাবার হ্যাঙ্গার এবং ঝুমঝুমি।

হুকটা ছাদে আটকান আপনার বিছানা বা আপনার বাচ্চার শোবার জায়গার ওপর।এবার হ্যাঙ্গারটাকে বাঁধুন হুক থেকে নেমে আসা শক্ত সুতোর সাথে এইবার ওই হ্যাঙ্গার থেকে কিছু আলো জ্বলা নরম খেলনা বেঁধে দিন আপনার বাচ্চার হাতের নাগালের মধ্যে কিন্তু এমনভাবে বাঁধবেন যেন সে ওগুলোকে মুঠো করে ধরতে না পারে।

2.মাছ দেখান

আপনার শিশুর মনোযোগ আকর্ষনের জন্য রঙিন বস্তু অপেক্ষা আর ভাল কিছু হতে পারে না।তাকে একটা অ্যাকোরিয়ামের কাছে নিয়ে যান এবং বিভিন্ন গ্রীষ্মমন্ডলীয় মাছ গুলো দেখান, এটা খুব ভাল ব্যায়াম তার দৃষ্টিশক্তি বাড়াবার জন্য এবং কোনো বস্তুর অবস্থান বোঝার জন্য।এর জন্য আপনার দরকার বাড়িতে একটা অ্যাকোরিয়ামের অথবা আপনার বন্ধুর বাড়ির অ্যাকোরিয়ামের যাতে ভর্তি আছে রঙ বেরঙের নানান মাছ।

মাছ দেখান

প্রয়োজনে ডাক্তারের সাথে আলোচনা করুন

  • যদি আপনি দেখেন যে আপনার শিশু কম খাচ্ছে,তার ন্যাপি শুকনো থাকছে, তার যন্ত্রণা হছে তাহলে বুঝতে হবে তার ডিহাইড্রেশান বা কোষ্ঠকাঠিণ্য হয়েছে।আপনি তাকে দ্রুত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান।
  • আপনার শিশুর ফন্টানেলস (মাথার নরম স্থান)এখন পর্যন্ত ফিউজড হয় নি সেটা কিছু সময় পর্যন্ত নরম থাকে।এই অংশটি স্ফীত হয়ে যায় যখন শিশুটি কঁদে বা যখন ডিহাইড্রেশান ঘটে।আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন যদি অনেকক্ষন ধরে এই অবস্থা চলতে থাকে।

আপনার শিশু এখন তার অতিব্যাস্ত সময়ের মধ্যে দিয়ে চলছে। আরো উত্তেজনাময় অভিজ্ঞতা আপনার জন্য অপেক্ষা করছে।