কীভাবে আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাবেনঃ অবস্থান, টিপস এবং আরও কিছু

কীভাবে আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাবেনঃ অবস্থান, টিপস এবং আরও কিছু

আপনার শিশুকে কি খাওয়াবেন তা জানা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনই শিশুকে কীভাবে খাওয়াবেন সেটা জানাও গুরুত্বপূর্ণ । কীভাবে ধরতে হবে, স্তন বা বোতলের সাথে শিশুর মুখ সঠিকভাবে ধরা, এরপর ঢেঁকুর তোলানো একটি ভাল খাবার খাওয়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় । কিন্তু এই কারণগুলির গুরুত্ব জানলে কাজ আরও সহজ হয় । শিশুরা খাওয়ার পর ঢেঁকুর তোলে কারণ, তারা খাওয়ার সময় কিছু হাওয়ার বুদবুদ গিলে ফেলে । যেহেতু তারা খুব কমনীয় পর্যায়ে আছে, তাদের সঠিকভাবে ঢেঁকুর তোলা শেখানো গুরুত্বপূর্ণ ।

aniview

ঢেঁকুর কি?

শিশুরা বুকের দুধ বা ফর্মুলা দুধ খাওয়ার সময় হাওয়ার বুদবুদগুলিকে গিলে ফেলে । এই হাওয়ার বুদবুদ শিশুর পাচকতন্ত্রে আটকে গিয়ে তাদের পক্ষে অস্বস্তিকর এবং গ্যাসি হতে পারে । ঢেঁকুর তোলা হল তাদের মুখের মাধ্যমে পাচকতন্ত্র থেকে গ্যাস মুক্তির প্রক্রিয়া । তবে, এই হাওয়ার বুদবুদগুলি শিশুটির পাচকতন্ত্রে পৌঁছাতে পারে এমন অন্যান্য কারণও রয়েছে, যার মধ্যে কয়েকটি আলোচনা করা হয়েছে ।

তিনটি উপায় যাতে শিশুরা হাওয়া গিলে ফেলেঃ

  • দুধ খাওয়ার সময়ঃএকটিবোতলথেকে/ বুকেরদুধখাওয়ানোরসময়, একটিশিশুরঅবিরামদুধখাওয়াদরকার, কারণএইসময়হাওয়ারবুদবুদগুলিতাদেরখাদ্যনালীতেপ্রবেশকরতেপারে।
  • খাবারঃযেশিশুরাকঠিনখাবারখেতেশুরুকরেছে, তাদেরক্ষেত্রেএইঅবস্থাটিপ্রায়ইহয়।কিছুনির্দিষ্টখাবারপাচকক্রিয়ারসময়অন্ত্রেগ্যাসউৎপন্নহয়।
  • অ্যালার্জিঃ কিছু ধরণের খাবারে প্রতি অ্যালার্জি বা অসহিষ্ণুতা শিশুর পেটে গ্যাস তৈরি করতে পারে ।

কেন আপনার শিশুর ঢেঁকুর ওঠে?

যখন হাওয়ার বুদবুদ একটি শিশুর পেটে আটকে যায়, তখন এটি তাদের অস্বস্তি এবং উদ্বেগ সৃষ্টি করে । তারা পেট ভর্তি ও থলথলে অনুভব করে এবং এর কারণে ছটফট করে বা কান্নাকাটি করে সংকেত দেয় যে, তাদের কিছু উপশম পাওয়ার জন্য আপনার সাহায্যের প্রয়োজন । শিশু ছটফট না করলেও তার ঢেঁকুর তুলিয়ে দেওয়া উচিত বলে মনে করা হয় । ঢেঁকুর তোলা শিশুদের জন্য বেশ উপকারী, বিশেষ করে যারা বারবার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যায় ভোগে । এটাও সাধারণত বিশ্বাস করা হয় যে, বুকের দুধ খাওয়ানো শিশুগুলির ফর্মুলা দুধ খাওয়ানো শিশুদের মতো অতটা ঢেঁকুরের প্রয়োজন হয় না, কেননা তারা খাবারের সময় কম হাওয়া গিলে ফেলে । তবে, এটি শিশুর প্রতি শিশুর উপর সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে এবং আপনাকে খাওয়ানোর প্রয়োজন হলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদের সংকেতগুলি বোঝার চেষ্টা করা উচিত ।

ঢেঁকুর তোলা শিশুর জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ?

শিশুদের পেটে আটকে থাকা হাওয়া বের করার জন্য ঢেঁকুর তোলার প্রয়োজনশিশুদের পেটে আটকে থাকা হাওয়া বের করার জন্য সাহায্যের প্রয়োজন । যখন একটি শিশু বারবার ঢেঁকুর তুলবে, তখন শিশুকে ঢেঁকুর তোলানো কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আপনাকে বুঝতে হবেঃ

  • কোলিক (পেটে ব্যাথা): পেটর ভিতরে প্রচুর পরিমাণ হাওয়া আটকে গেলে শিশুরা কোলিক (পেট ব্যাথা) ভোগ করে । পেটে ব্যাথায় ভুগছে এমন শিশু অবিরত কাঁদতে পারে, এবং খুব বদমেজাজি হয়ে উঠতে পারে । পেটে যন্ত্রণার প্রভাব হ্রাস করার জন্য, আপনি আপনার শিশুর খাওয়ার পর তাকে সঠিকভাবে ঢেঁকুর তুলতে সাহায্য করুন ।
  • ঘুমের অভাবঃ কখনও কখনও মায়েরা অভিযোগ করেন যে, তাদের শিশুরা রাতে ভালো ঘুমাচ্ছে না বা বার বার জেগে উঠছে । যদি আপনি বোঝেন যে, আপনার শিশুকে বসিয়ে রাখলে সে ভালো থাকে, তবে বুঝবেন তার পেট ভেতর হাওয়া আটকে থাকার কারণে অস্বস্তি সৃষ্টি হচ্ছে ।
  • বিষম লাগার ভয়ঃ শিশুটিকে খাওয়ানোর আগে আপনাকে তার ঢেঁকুর তোলানো উচিত, কারণ এটি হাওয়াকে পরিষ্কার করতে সহায়তা করে এবং শিশুর খাওয়ানো অবস্থায় বিষম লাগা এড়াতে সাহায্য করে ।
  • সঠিক অভ্যাস তৈরি করাঃ ঢেঁকুর তুলিয়ে দেওাআ আপনার শিশুকে আপনার প্রতি আরও গ্রহণক্ষম করে এবং একটি স্বাস্থ্যকর জীবন পেতে এগিয়ে দেয় ।

কখন আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাবেন?

আপনার শিশুর ঢেঁকুর তোলানোর সেরা সময়টি হল খাওয়ানোর ঠিক পরেই, বিশেষ করে প্রথম ছয় মাসে । প্রথম ছয় মাস ধরে, আপনি আপনার শিশুকে প্রায় ১০ বা ১৫ মিনিটের জন্য সঠিক অবস্থানে রাখতে পারেন (কখনও কখনও শিশুটি কেশে খাবার উগড়ে দিলে, এতে আরও দীর্ঘ সময় লাগতে পারে) ।

যদি শিশু কেশে খাবার উগড়ে দিলে চিন্তা করবেন না, কারণ এটা প্রাকৃতিক এবং আপনার শিশুর জন্য ভালো ।

সদ্যজাত শিশুকে কীভাবে ঢেঁকুর তোলাবেন?

একটি শিশুকে ঢেঁকুর তোলানোর জন্য আপনাকে সঠিকভাবে ঢেঁকুর তোলার কৌশল সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত । সঠিক অবস্থানে রেখে, আপনি তাদের পাচকতন্ত্র থেকে গ্যাস বের করে দিতে পারেন । যদিও কিছু শিশুর খাওয়ার পরেই ঘুমিয়ে পরার প্রবণতা থাকে এবং অতএব তাদের তোলানো কিছুটা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে । ঘুমান্ত শিশুকে বা জাগ্রত শিশুকে কিভাবে ঢেঁকুর তোলাবেন, তার সবচেয়ে ভালো উপায় এখানে দেওয়া হল:

আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলানোর জন্য শ্রেষ্ঠ অবস্থান

কীভাবে শিশুকে ধরতে হবে, তা সংশোধন করাই প্রথম এবং সর্বাগ্রে প্রয়োজন, এরপর বিভিন্ন কৌশল দ্বারা অনুসরণ করা উচিত । এখানে আপনার জন্য কয়েকটি উপায় রয়েছে, যা আপনি আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাতে পারেন:

আপনার বুকে বা কাঁধে সোজাভাবে রেখে শিশুকে ঢেঁকুর তোলান-

সোজা হয়ে বসুন এবং আপনার কাঁধে শিশুর চিবুক রেখে তাকে আপনার বুকে রাখুন

  • সোজা হয়ে বসুন এবং আপনার কাঁধে শিশুর চিবুক রেখে তাকে আপনার বুকে রাখুন । আপনার কাঁধ থেকে পিঠ পর্যন্ত একটি কাপড় রাখুন, কারণ শিশু মুখ থেকে খাবার উগড়ে দিলে আপনার জামাকাপড় রক্ষা করবে । এক হাত দিয়ে শিশুর পিঠ ধরে অন্য এক হাত দিয়ে পিঠে আস্তে আস্তে চাপড় মারতে থাকুন ।
  • যদি আপনার শিশুর মাথা এবং পিঠের উপর একটু নিয়ন্ত্রণ থাকে তবে আপনি তাকে আপনার কাঁধে আরও একটু উপরে ধরে রাখতে পারেন, যাতে আপনার কাঁধ আস্তে আস্তে শিশুর পেটে চাপ দেয় । এটি একটি সামান্য চাপ তৈরি করে এবং ঢেঁকুর তুলতে সাহায্য করে । এক হাত দিয়ে শিশুর পিঠ ধরে রাখুন এবং আস্তে আস্তে চাপড় মারুন ।

কোলে বসিয়ে শিশুকে ঢেঁকুর তোলান-

কটি হাত ব্যবহার করে তার বুক, গাল এবং থুতনি আঙুল দিয়ে ধরে রাখুন

  • শিশুকে একটি নালপোষ রাখুন এবং শিশু আপনার মুখমুখি থাকে এমনভাবে রেখে বসুন । একটি হাত ব্যবহার করে তার বুক, গাল এবং থুতনি আঙুল দিয়ে ধরে শিশুর শরীরকে আশ্রয় দিন । শিশুকে সামনের দিকে সামান্য একটু ঝোঁকান এবং অন্য হাত দিয়ে আস্তে আস্তে শিশুর পেটে ঘষুন ।
  • শিশুর মুখ নিচের দিকে রেখে আপনার কোলে একটি নালাপোষ রাখুন এবং শিশুর মুখটি শুইয়ে দিন, যাতে শিশু আপনার হাঁটু দুটির উপর শুয়ে থাকে, যেন আপনার শরীরের সঙ্গে সমকোণে থাকে । এক হাত দিয়ে শিশুর গালে ঠেকা দিন এবং শিশুর পিঠে হালকা করে ঘষুন । মাথায় রক্ত জমা এড়ানোর জন্য, শিশুর মাথা খুব নিচে নামাবেন না, সে বিষয়ে সতর্ক থাকুন ।

হাঁটতে হাঁটতে শিশুকে ঢেঁকুর তোলান-

একটি হাত দিয়ে শিশুকে ধরুন এবং শিশুর পেটের চারপাশে হালকা করে চাপ দিন

  • শিশুর যখন তার মাথায় ভালো নিয়ন্ত্রণ থাকে, তখন এই কৌশল চেষ্টা করা যেতে পারে । আপনি আপনার শিশুকে আপনার থেকে দূরে মুখ রেখে তুলে ধরে দাঁড়ান এবং হাঁটুন । একটি হাত দিয়ে শিশুকে নিচে থেকে ধরুন এবং একটি হাত দিয়ে শিশুর পেটের চারপাশে হালকা করে চাপ দিন ।

ফর্মুলা দুধ খাওয়ানোর সময়, প্রতিবার ৬০-৯০ মিলিলিটার দুধ খাওয়ানোর পর আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলান । যদি আপনি আপনার শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন, তাহলে স্তন পরিবর্তন করার সময় তার ঢেঁকুর তোলান ।

আপনি খাওয়ানোর পরে শিশুর ঢেঁকুর তোলানোর সেরা কৌশলটি জানতে চাইলে, আপনাকে এটি করতে হবে যখন শিশুটি ঘুমোবে, তাকে আপনার দিকে মুখ করিয়ে আপনার কাঁধে রাখুন এবং তার পিঠে হালকা করে ঘষুন । আপনি আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলানোর সময় তাকে আদর করতে পারেন ।

কত ঘন ঘন আপনি আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাবেন?

আপনি আপনার শিশুকে কত ঘন ঘন খাওয়ান তার উপরেই নির্ভর করে যে, আপনি তাকে কত ঘন ঘন ঢেঁকুর তোলাবেন ।

  • যদি শিশুর গ্যাসী হওয়ার বা খাবার উগড়ে দেওয়ার প্রবণতা থাকে, তাহলে বোতোলে খাওয়ানোর প্রতি আউন্স (প্রায় ৩০ মিলিলিটার) পর এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর প্রতি ৫ মিনিট পর চেষ্টা করুন ।
  • কয়েক মিনিট পরেও যদি আপনার শিশু ঢেঁকুর না তোলে, তাহলে আপনাকে ঢেঁকুর তোলানোর কৌশল পাল্টাতে হতে পারে ।

আপনার শিশু যদি ঢেঁকুর তোলার সময় খাবার উগড়ে দেয়?

ঢেঁকুর তোলার প্রক্রিয়াটিতে সামান্য একটু ফর্মুলা/বুকের দুধ উগড়ে দিতে পারে । ফর্মুলা দুধ খাওয়ানো শিশুদের ক্ষেত্রে, এটি হওয়ার একটি কারণ হল, কিছু ব্র্যান্ডের দুধের মধ্যে হাওয়া আটকে থাকে ।

যদি আপনার শিশু উগড়ে দেয়, তাহলে কিছু সতর্কতা-

  • যদি আপনার শিশু বোতল বা স্তন থেকে মুখ ঘুরিয়ে নেয়, তাহলে তাকে আর খাওয়ানো বন্ধ করুন । অতিরিক্ত খাওয়ালে শিশুর উগড়ে দেওয়ার প্রবণতা বেরে যায় ।
  • খাওয়ানোর পর আপনি আপনার শিশুকে হালকা তুলে ধরতে পারেন ।
  • যদি আপনার শিশু ঘন ঘন উগড়ে দেয়, তাহলে আপনার শিশুকে খাওয়ানোর সময় ঘন ঘন বা প্রতি আউন্সে ঢেঁকুর তোলান ।
  • আপনার শিশুর পিঠে বৃত্তাকারে ঘষতে থাকুন ।
  • যদি আপনার শিশুকে বোতলে খাওয়ান, আপনাকে খুব ছোট বা খুব বড় বৃন্তের ফুটো ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে ।

কি কারণে ঢেঁকুর তোলার সময় কাঁদে?

যখন শিশুটি দুধ খাওয়ার সময় দুধ বা ফর্মুলা দুধের সমগে প্রচুত পরিমাণে হাওয়া গিলে ফেলে, তখন অস্বস্তি দেখা দেয়, যার ফলে শিশুটি কাঁদতে পারে । কান্নাকাটি করার আরেকটি কারণ হতে পারে, যখন শিশুটি কাশির সঙ্গে উগড়ে দেয় (এতে একটি গ্যাস্ট্রো-ওইয়েসোফাগেল রিফ্লাক্স থাকে) ।

শিশুকে খাওয়ানোর সময় বারবার ঢেঁকুর তোলালে এবং আরো সঠিকভাবে একটু উঁচু করে ধরে খাওয়ালে এই ব্যাপারে সাহায্য করা যেতে পারে ।

আপনার শিশু ঢেঁকুর না তুললে কি করবেন?

শিশুদের খাওয়ানোর সময় নিয়মিত সময়ের অন্তর এবং পরে ঢেঁকুর তোলানো উচিত । আপনি আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলাতে বিভিন্ন কৌশল চেষ্টা করতে পারে । যাইহোক, যদি বমি না হয়, তাহলে শিশু ঢেঁকুর না তুললেও কোন ক্ষতি নেই । যদি এক বা দুইবার বমি হয়, তাহলে এতে চিন্তার কোন কারণ নেই । কখনও কখনও, শিশু সুখী থাকতে পারে এবং আরাম পেতে পারে । অতএব, যদি সে ঢেঁকুর না তোলে, তাহলে এটা ঠিক আছে । আপনি খাওয়ানোর পরে আপনার শিশুর আচরণ লক্ষ্য করুন ।

কখন একটি শিশুকে ঢেঁকুর তোলানো বন্ধ করতে হয়?

আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলানো বন্ধ করার জন্য কোনও নির্দিষ্ট বয়স নেই, তবে একটি শিশুর বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে, পাচকতন্ত্র পরিপক্ক হয়, ঢেঁকুর তোলার প্রয়োজনীয়তা কম হতে থাকে । শিশুটি ২ থেকে ৩ মাস বয়সী হওয়ার সাথে সাথে, নিয়মিত ঢেঁকুর তোলানোর প্রয়োজন হয় না । যখন শিশুরা সোজা হয়ে বসতে শিখবে, তখন তারা নিজেরাই ঢেঁকুর তুলবে ।

আপনার শিশুকে ঢেঁকুর তোলানোর জন্য সেরা টিপস

  • আপনারশিশুগ্যাসীকিনাবাতাদেরঢেঁকুরতোলারপ্রয়োজনআছেকিনাতাজানারজানারজ্যশরীরেরভাষাবোঝাগুরুত্বপূর্ণ।
  • আপনার শিসশুকে কতবার ঢেঁকুর তোলাতে হচ্ছে, তার হিসাব রাখা উচিত ।
  • যে শশুদের বোতলে খাওয়ানো হয়, তারা বেশি ঢেঁকুর তোলে, কার তারা বুকের দুধ খাওয়া শিসশুদের থেকে বেশি হাওয়া গিলে ফেলে । যাইহোক, আপনার শিশুর প্যাটার্ন লক্ষ্য করুন, কারণ এটি ভিন্ন শিশুর ক্ষেত্রে ভিন্ন হয় ।
  • যদি শিশুটি কিছু মিনিটের চেষ্টার পরও ঢেঁকুর না তোলে, তাহলে আপনাকে অন্য কৌশল ব্যবহার করতে হবে এবং যদি এটাও কাজ না করে, তাহলে আর চাপ দেবেন না, কারণ আপনার শিশু হয়তো আরামেই আছে ।
  • শিশু আরামে আছে লক্ষ্য করলে, তাকে ঢেঁকুর তোলার জন্য জোর করা উচিত নয় ।
  • ঢেঁকুর তোলানোর সময় শিশুর পিঠে ঘষা সাহায্য করতে পারে ।
  • বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়, নিশ্চিত করুন যে, স্তনের সাথে শিশুর মুখ শক্ত করে ধরা থাকে, যাতে সে বেশি হাওয়া গিলে না ফেলে । বোতলে দুধ খাওয়ানোর সময়ও লক্ষ্য রাখুন যে, বৃন্ত বেশি বড় বা খুব ছোট যেন না হয়, যার কারণে শিশু অনেকটা হাওয়া গিলে ফেলে ।
  • যাতে ঢেঁকুর তোলাতে না হয়, তার জন্য খুব শান্ত জায়গায় শিশুকে খাওয়ান ।
  • ঢেঁকুর তোলার সময় মুখ ও নাক থেকে উগড়ে দেওয়া সাধারণ । যাইহোক, অত্যাধিক বমি হলে, আপনি শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন ।

কখন চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে?

শিশুর যদি ১০০.৪ ডিগ্রি জ্বর, ডায়রিয়া, রক্তাক্ত মল, এবং অত্যধিক গ্যাস হয়, তখন চিকিৎসকের পরামর্শ চাওয়া উচিত ।

উপসংহার: আপনার শিশুর যদি গ্যাস হয়, কিন্তু ভালোভাবে খাওয়ানো হয়ে থাকে, তবে চিন্তা করার কোনো কারণ নেই । শিশুদের সাধারণত ঢেঁকুর তোলার ঝোঁক থাকে, কারণ তাদের পাচকতন্ত্র এখনও উন্নয়নশীল । যদি তারা ঢেঁকুর না তোলে, শুধুমাত্র তখনই আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে, তারা যেন করে । আপনি যদি প্রয়োজন বোধ করেন, তাহলে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে দ্বিধা করবেন না ।