গর্ভাবস্থায় আতা (শীতাফল) – উপকারিতা এবং ঝুঁকি

গর্ভাবস্থায় আতা (শীতাফল) - উপকারিতা এবং ঝুঁকি

আতার আরেক ভারতীয় নাম, শীতাফল, সংস্কৃত শব্দ ‘শীতা’ থেকে এসেছে, যার অর্থ ঠান্ডাএবং ফল যার অর্থ ফল এটি এমন একটি ফল যা শরীরকে শীতল করার জন্য পরিচিত। আপনি যদি ভাবছেন যে আপনি গর্ভাবস্থায় আতা খেতে পারবেন কিনা, তবে পড়া চালিয়ে যান।

aniview

আতার পুষ্টির মান

আতার প্রতি ১০০ গ্রামে পুষ্টির মান নিম্নরূপ:

শক্তি ৩৯৩ কেজে (৯৪ ক্যাল)
শর্করা ২৩.৬৪ গ্রাম
ফ্যাট .২৯ গ্রাম
প্রোটিন .০৬ গ্রাম
ভিটামিন বি১ .১১ এমজি
ভিটামিন বি৬ .২ এমজি
ফোলেট ১৪ ইউজি
ক্যালসিয়াম ২৪ এমজি
ম্যাগনেসিয়াম ২১ এমজি
পটাশিয়াম ২৪৭ এমজি

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য আতার উপকারিতা

গর্ভবতী মহিলারা গর্ভাবস্থায় আতা খাওয়ার মাধ্যমে এই উপকারিতাগুলি পেতে পারেন।

. সকালের অসুস্থতা হ্রাস

ভিটামিন বি৬ বমি বমি ভাব এবং সকালের অসুস্থতার সংবেদন প্রতিরোধ করে।

. স্বাস্থ্যকর ওজন বৃদ্ধি

ফলটিতে ক্যালোরি এবং নিউরাল সুগার বেশি থাকে। সুতরাং এটি ওজন বাড়াতে সহায়তা করবে।

. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ

গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ ওঠানামা করতে থাকে। এতে থাকা পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

. কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি

ডায়েটরি ফাইবার হজমতন্ত্রের স্বাস্থ্য বজায় রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের উপশম করে, মলকে নরম করে এবং অন্ত্রের গতিবেগকে উন্নত করে। ডায়েটরি ফাইবার ডায়রিয়াও কমায়। (আতা ডায়রিয়া হ্রাস করতে পারে না)

. স্ট্রেস হ্রাস

ম্যাগনেসিয়াম পেশীগুলি শিথিল করে এবং কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণ করে। এটি স্ট্রেস হ্রাস করে এবং হৃদয়কে সুরক্ষা দেয়।

. ভ্রূণের বিকাশ উন্নত করা

সামগ্রিক পুষ্টির উপাদানগুলি ভ্রূণের ত্বক, টেন্ডার এবং রক্তনালীগুলির বিকাশে সহায়তা করে।

. শরীর থেকে টক্সিন পরিষ্কার করা

ফলের মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা শরীরের বিষাক্ত পদার্থকে পরিষ্কার করে, তাই কিডনিগুলি সর্বোত্তম অবস্থায় রাখে। এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি শক্তিশালী ইমিউন সিস্টেম তৈরি করতে সহায়তা করে।

. দাঁতের সমস্যা থেকে মুক্তি

আতায় থাকা ফাইবারের উপাদানগুলি দাঁতকে ঝকঝকে সাদা করে, মাড়ির সমস্যা নিরাময় করে এবং দুর্গন্ধ দূর করে।

. অকাল প্রসব প্রতিরোধ

কপার বা তামা গর্ভবতী মহিলার জন্য প্রয়োজনীয়, কারণ তাদের ভ্রূণের সুরক্ষার জন্য কপারের ১০০ মিলি ডোজ প্রয়োজন। আতা এই তামার পরিমাণের একটি নির্দিষ্ট অংশ সরবরাহ করে। গর্ভপাতের ঝুঁকি হ্রাস করার পাশাপাশি এটি অকাল প্রসবের সম্ভাবনাও হ্রাস করে।

গর্ভাবস্থায় আতা খাওয়ার ঝুঁকি

দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা এড়াতে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি মাথায় রাখুন:

  • আতার বীজ আপনার পাচনতন্ত্রকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে।
  • যদি আপনার ঠান্ডা জাতীয় খাবারে অ্যালার্জি থাকে তবে এই ফলটি গ্রহণ না করাি ভাল।
  • আতায় যেহেতু চিনির পরিমাণ বেশি, তাই গর্ভকালীন ডায়াবেটিস রোগীদের এটি সেবন করা উচিত নয়। (বা এটি সংযমে খাওয়া উচিত)
  • অতিরিক্ত ওজনযুক্ত মহিলাদের এই ফলটি খাওয়া এড়ানো উচিত (পুরোপুরি এড়াতে হবে না সংযতভাবে গ্রহণ করা যেতে পারে)

যে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত

কাস্টার্ড আপেল খাওয়ার সময় আপনি নিম্নলিখিত সতর্কতা অবলম্বন করতে পারেন:

  • আতার বীজ সঠিকভাবে এড়াতে একটি চামচ দিয়ে শাঁসটি স্কুপ করে তুলে নিন।
  • কাঁচা আতা খাবেন না। পাকাগুলি উজ্জ্বল সবুজ এবং স্বচ্ছ অনুভূত হয়।
  • এই ফলটি খাওয়ার আগে আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য আতার রেসিপি

আতার এই সুস্বাদু রেসিপিগুলি চেষ্টা করে দেখুন!

. আতার রাবড়ি

উপকরণ:

  • আতা, খোসা ছাড়ানো এবং ডাইস করা – ২টি
  • দুধ ৩ কাপ
  • ঘন দুধ ২ চামচ
  • গুড় – স্বাদ মতো

মেশানোর জন্য:

  • ঘি ২ চামচ
  • সবুজ এলাচ ৩টি
  • কাজু এক মুষ্টি মতো
  • বাদাম এক মুষ্টি মতো

পদ্ধতি:

  • ৩০ মিনিটের জন্য আতার শাঁস ফ্রিজে রেখে দিন।
  • একটি পাত্রে দুধ যোগ করুন এবং এটি ফোটান।
  • এই দুধে কনডেন্সড মিল্ক বা ঘন দুধ এবং গুড় যোগ করুন।
  • এটি ৬৭ মিনিটের জন্য অল্প আঁচে ফুটতে দিন।
  • এই মিশ্রণটি শাঁসের উপরে ঢালুন।
  • কাজু এবং কাঠবাদাম দিয়ে সাজিয়ে নিন।

. আতার স্ম্যুদি

আতার স্ম্যুদি

উপকরণ:

  • আতা – ২টি
  • দুধ ১ কাপ
  • ভ্যানিলা আইসক্রিম (ঐচ্ছিক) – ১ স্কুপ
  • চিনি – স্বাদ মতো।

পদ্ধতি:

  • আতার শাঁসের সাথে দুধ যোগ করুন।
  • এছাড়াও, চিনি এবং ভ্যানিলা আইসক্রিম যোগ করুন।
  • এটি মেশান।
  • এটি একটি গ্লাসের মধ্যে ঢালুন এবং আপনার গর্ভাবস্থা উদযাপন করুন!

শীতাফল একটি এমন শক্তিশালী ফল যা আপনি গর্ভাবস্থায় উপভোগ করতে পারেন। আপনি যদি বীজ গ্রাস না করেন তবে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে চিন্তা না করে আপনি তার আশ্চর্যজনক উপকারগুলি উপভোগ করতে পারেন!