গর্ভাবস্থায় আলু সেবন করা- এটি কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় আলু সেবন করা- এটি কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় আপনার সেবন করা যেকোনও খাবার শুধুমাত্র আপনার স্বাস্থ্যের উপরেই নয় তার সাথে আপনার গর্ভস্থ ছোট্টটির স্বাস্থ্যের উপরেও প্রভাব ফেলে।আলু হল কোনও গর্ভবতী মহিলার জন্য ডায়াটরি ফাইবার বা খাদ্যগত তন্তু, বিভিন্ন ভিটামিন এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদানের এক সমৃদ্ধ উৎস।অতি মাত্রায় গ্রহণের ফলে দেখা দিতে পারে এমন কোনও সম্ভাব্য খারাপ প্রভাব এড়ানোর জন্য সংযমের সাথে আপনার এটি গ্রহণ করা উচিত।

aniview

গর্ভাবস্থায় আলু সেবন করার উপকারিতাগুলি

আলু এমন কিছু পুষ্টি উপাদানে পরিপূর্ণ যা গর্ভাবস্থায় আপনার শরীরের জন্য প্রয়োজন, সুতরাং গর্ভাবস্থায় আপনি যদি আলু খাওয়ার জন্য আকুল হয়ে ওঠেন, সেক্ষেত্রে আপনি নিশ্চিন্তে তা কিছুটা খেতে পারেন।তবে সেটি খাওয়ার আগে একবার আপনার ডাক্তারবাবুর সাথে এ ব্যাপারে আলোচনা করে নেওয়াই সবচেয়ে ভাল।আলুর কিছু উপকারিতার কথা এখানে উল্লেখ করা হলঃ

1. অ্যাসিডিটি বা অম্লতা হ্রাস করে

হজম এবং অ্যাসিডিটি বা অম্লতাজনিত সমস্যা আছে যাদের, তাদের জন্য আলু ভীষণভাবে উপকারী।সেদ্ধ আলু পরিবেশন গ্যাসট্রিক অ্যাসিডিটি হ্রাস করতে সাহায্য করতে পারে।এছাড়াও এটি খাওয়া যেমন সহজ, তেমনি হজম করাও সহজ।

2. ভিটামিন B এবং C দ্বারা সমৃদ্ধ

আলু মধ্যস্থ ভিটামিনগুলি ক্ষত নিরাময়ে এবং অনাক্রম্যতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।এছাড়াও এগুলি অন্যান্য খাদ্য থেকে আয়রন শোষণে সাহায্য করে।

3. ফোলেটের ভাল উৎস

ভ্রূণের মস্তিষ্ক এবং স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জন্য ফোলিক অ্যাসিড ভীষণভাবে উল্লেখযোগ্য।গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায়েই ফোলেট সমৃদ্ধ খাদ্যগুলি গ্রহণ করলে তা গর্ভপাত হওয়ার সম্ভাবনাকে হ্রাস করে।

4. উচ্চ শক্তি সম্পন্ন

আলু প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেটে পূর্ণ এবং সেটি শক্তির একটা বেশ ভাল উৎস হিসেবে কাজ করে।তবে আলু এবং অন্যান্য স্টার্চি কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবারগুলি থেকে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি পাওয়া রোধ করতে ব্যায়াম করা এবং সক্রিয় থাকাটা জরুরী

5. স্ফীত চোখের চিকিৎসা করে

চোখের তলা ফুলে ওঠা, যা গর্ভাবস্থায় হয়ে থাকা সাধারণ একটা ব্যাপারতা চিকিৎসায় আলু সাহায্য করতে পারে।আপনার চোখের উপর 10-15 মিনিটের জন্য কিছুটা আলু থেঁতো রাখলে তার শীতল প্রভাবটি পাওয়া যায় যা চোখের ফুলোভাবটি থেকে মুক্তি দেয়।

6. হৃদ্‌রোগ হ্রাস করে

আলুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে যা রক্তচাপ হ্রাস করে এবং হার্ট স্ট্রোক ও উচ্চ রক্তচাপের প্রকোপ কমানোর জন্য পরিচিত।

গর্ভাবস্থায় আলু খাওয়ার ক্ষতিকারক প্রভাবগুলি

গর্ভাবস্থায় আপনার খাদ্যাভ্যাসের ব্যাপারে যত্ন নেওয়া এবং স্বাস্থ্যকর আহারগুলি গ্রহণ করার ব্যাপারটি আপনার নিশ্চিত করা প্রয়োজন।যদিও আলু বিভিন্ন পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ কিন্তু তা সত্ত্বেও এটি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য কিছু ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে।আর সেই সকল ঝুঁকিগুলির কিছু নিম্নে তালিকাবদ্ধ করা হলঃ

  • সবুজ ছোপ দাগযুক্ত আলুগুলি গ্লাইকোঅ্যালকালয়েডস, আলফাসোলানাইন এবং আলফাচকোনিনের মত বিষাক্ত যৌগগুলির উপস্থিতি নির্দেশ করে, যা ডায়রিয়া এবং বমি হওয়ার মতো গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যার কারণ হতে পারে
  • সবুজ আলু খাওয়ার ফলে স্পাইনা বিফিডা এবং অ্যানেনসেফালির মত জন্মগত অক্ষমতাগুলি দেখা দিতে পারে
  • পচা আলু খেলে তা গর্ভবতী মায়েদের ফুড পয়েজন বা খাদ্য বিষক্রিয়ার কারণ হয়ে উঠতে পারে।
  • গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত আলু সেবনকারী অতিরিক্ত ওজনের মহিলাদের মধ্যে স্থূলতা আরও বৃদ্ধি পাওয়ার প্রবণতা থাকে।

রান্নার যে পদ্ধতিগুলি আপনার এড়িয়ে চলা উচিত

গর্ভাবস্থায় আলুর চিপস খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় না, যেহেতু এটা প্রচুর তেলে ভাজা হয়, যা আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে অস্বাস্থ্যকর।এটি আপনার গর্ভকালীন ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে অথবা আপনার মধ্যে কিছু অস্বাস্থ্যকর ওজন বৃদ্ধি করতে পারে।সুতরাং গর্ভাবস্থায় বেশি তেলে ভাজা, মাখন কিম্বা চীজ দিয়ে আলু বেক করার মত রান্না পদ্ধতিগুলি আপনার এড়িয়ে চলাই উচিত।আলুকে তেলের মধ্যে কড়া করে ভাজা কিম্বা বেক করার পরিবর্তে বরং সেগুলিকে সেদ্ধ করুন বা ভাপিয়ে নিন এবং তার স্বাদকে বাড়িয়ে তোলার জন্য এর মধ্যে কিছু ভেষজ মশলা যোগ করুন।

ঘন ঘন আলু সেবন কী গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে?

আলুর মধ্যে অনেক বেশি পরিমাণে স্টার্চ বা শ্বেতসার থাকে, যা খুব দ্রুত দেহের মধ্যে শোষিত হয়ে যায়।এটি গ্লুকোজের বিপাককে প্রভাবিত করতে পারে, যা ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকিকে বাড়িয়ে তোলে।অতএব, অত্যধিক আলু গ্রহণের ফলে সম্ভবত গর্ভকালীন ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি দেখা দিতে পারে।

কীভাবে সঠিক আলুগুলিকে বেছে নেবেন

আলু কেনার সময় সকলেরই সে ব্যাপারে একটু সচেতন হওয়া প্রয়োজন।আলু কেনার ক্ষেত্রে সেগুলির খারাপ প্রভাবগুলি এড়ানোর জন্য এমন কয়েকটি বিষয় আছে যেগুলি আপনার বিবেচনা করা প্রয়োজন।আপনি যে আলুগুলি বেছে নেবেন সেগুলি হওয়া উচিতঃ

  • দৃঢ় এবং সুগঠণ যুক্ত
  • কোনওরকম ক্ষত ও ত্রুটিবিচ্যুতি ছাড়া
  • কোনও অঙ্কুর বা শিকড় যেন না থাকে
  • কোনওভাবে কাটাফাটা না থাকে
  • কোনওরকম কালো কিম্বা সবুজ ছোপ দাগ বিহীন
  • রান্না করার পূর্বে নিপূণতার সাথে ভালভাবে ধুয়ে নেওয়া

আপনার ডায়েটে আলু অন্তর্ভূক্ত করার স্বাস্থ্যকর উপায়গুলি

ভালভাবে রান্না করে সংযমের সাথে পরিমিত পরিমাণে যখন আলু সেবন করা হয় তখন তা গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ভীষণভাবে উপকারী হয়ে ওঠে।আলু রান্না করার কয়েকটি স্বাস্থ্যকর বিকল্পগুলি হলঃ

  • বেক করা আলু(চীজ কিম্বা মাখন ছাড়া)
  • অন্যান্য সবজি কিম্বা মাংসের সাথে যৌথভাবে রান্না করে
  • স্যুপ
  • স্টু
  • অন্যান্য সবজি এবং কিছু মশলা দিয়ে আলু সেদ্ধ মাখা
  • আলু ভাপা

আপনি করার চেষ্টা করতে পারেন এমন কিছু আলুর রেসিপি

উপরিল্লিখিত তালিকার ধারণাগুলি থেকে এখানে কয়েকটি রেসিপি দেওয়া হল, যেগুলি আপনি আলু দিয়ে তৈরী করার চেষ্টা করতে পারেনঃ

1.আলু এবং পিঁয়াজের স্যুপ

এখানে এমন একটি স্বাস্থ্যকর ক্ষুধাবর্ধক খাদ্যের রেসিপি দেওয়া হল যা আপনার গর্ভাবস্থাকালীন খাদ্যবাসনাকে চরিতার্থ করতে পারে।

উপকরণ

  • সুন্দরভাবে ছোট ছোট চৌক করে কাটা আলু-1 কাপ
  • শুকনো মিশ্রিত গুল্ম বা ভেষজ-1/2 কাপ
  • পাতলা করে কাটা পিঁয়াজের স্লাইজ-1/4 কাপ
  • মাখন-1 চাচামচ
  • লবণ এবং গোল মরিচ (স্বাদের জন্য)
  • গাজর কোঁড়া (গার্নিশের জন্য)

প্রণালী

  • একটি প্রেসার কুকারের মধ্যে মাখন নিয়ে তার মধ্যে পিঁয়াজ দিয়ে মাঝারি আঁচে এক মিনিট নেড়েচেড়ে সাঁতলে নিন।
  • এর মধ্যে আলু যোগ করে আরও 2 মিনিট ধরে নেড়ে নিন।
  • এবার এর মধ্যে দেড় কাপ মত জল ঢেলে দিয়ে সেটিকে ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে প্রেসার কুকারের ঢাকনা চাপা দিয়ে 3 টি সিটি পরা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।
  • এর পর মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে সেটিকে একটি ব্লেন্ডারের মধ্যে নিয়ে মিহি পিউরি রূপে গড়ে তুলুন।
  • তারপর এই মিশ্রণটিকে একটি কড়াইয়ের মধ্যে ঢেলে দিন এবং তার সাথে একে একে যোগ করুন শুকনো গুল্ম বা ভেষজ, মরিচ, লবণ এবং আধ কাপ জলসবগুলিকে ভালভাবে নাড়তে নাড়তে মাঝারি আঁচে রান্না করুন
  • হয়ে গেলে গাজর কোঁড়া দিয়ে সেটিকে গার্নিশ করে নিন।আপনার স্যুপ পরিবেশনের জন্য একদম প্রস্তুত।

2.আলুর স্যালাড

এই সুস্বাদু রেসিপিটি প্রস্তুত করা খুবই সহজ এবং সকলেই এটির স্বাদ আনন্দের সাথে উপভোগ করতে পারে।

উপকরণ

  • রান্না করা এবং চৌক করে কাটা আলু-8 টি মাঝারি আকারের
  • অ্যাপেল সিডার ভিনিগারবড় 2 চামচ
  • চিনিবড় 2 চামচ
  • মেয়োনিজ– 1 1/2 কাপ
  • লবণ– 1 চাচামচ
  • হলুদ সরষেবড় 1 চামচ
  • মোরিচ– 1/2 চাচামচ
  • রসুন গুঁড়ো– 1 চাচামচ
  • পিঁয়াজ বাঁটা– 1 কাপ
  • টুকরো করে কাটা 2 টি সেলারির ডাল
  • প্যাপ্রিকা– 1 চিমটে
  • সেদ্ধ ডিম– 5 টি

প্রণালী

  • আলুগুলিকে সেদ্ধ করে নিয়ে চৌক করে কেটে একটি বাটির মধ্যে রাখুন।
  • অন্য আরেকটি বাটিতে ভিনিগার, চিনি, মেয়োনিজ, লবণ, সরষে, মরিচ এবং রসুন গুঁড়ো নিয়ে ভালভাবে সব মিশিয়ে নিন।
  • এবার এই মিশ্রণটি সেদ্ধ আলুর টুকরোগুলির সাথে যোগ করুন।
  • এখন এই মিশ্রিত মিশ্রণটির সাথে পিঁয়াজ, সেলারি মিশিয়ে দিন।
  • সেদ্ধ করা ডিমগুলিকে পাতলা করে করে ফালি করুন এবং ঐ মিশ্রিত আলুর বাটির মধ্যে সেগুলিকে ঢেলে দিন।
  • সবশেষে এখন প্রস্তুত করা এই সালাডের বাটির উপর প্যাপ্রিকা ছড়িয়ে দিয়ে পরিবেশন করুন।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য আলু বহুবিধ স্বাস্থ্যকর পুষ্টি উপাদানে পরিপূর্ণ এবং সেটিকে গর্ভাবস্থার ডায়েট থেকে কখনই বাদ দেওয়া উচিত নয়।ভ্রূণের সার্বিক বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্যও আলু স্বাস্থ্যকর, কিন্তু তা অবশ্যই সংযমের সাথে পরিমিত পরিমাণে এবং স্বাস্থ্যকর উপায়ে গ্রহণ করে উচিত।তাছাড়াও এই সময় ভাজা আলুগুলি পরিহার করা এবং অতিরিক্ত মাত্রায় সেটি সেবন করা এড়িয়ে চলাই সর্বোত্তম, কারণ এটি স্থূলতা, গর্ভকালীন ডায়াবেটিস এবং গর্ভাবস্থার অন্যান্য জটিলতার মত সমস্যাগুলির কারণ হয়ে উঠতে পারে।তাই ঠিক কতটা পরিমাণ এবং কীভাবে গ্রহণ করাটা আপনার জন্য উপযুক্ত হতে পারে সে ব্যাপারে একজন ডায়াটেশিয়ানের মতামত নিয়ে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।