শিশু

বাচ্চাদের কিশমিশ খাওয়া

আমরা অনেকেই ভাল পুরানো কিশমিশ পছন্দ করি যা শুকনো মিষ্টি আঙ্গুর ছাড়া কিছুই নয়। এই ক্ষুদ্রাকৃতি, কোঁচকান প্যাকেটগুলি প্রায় মধ্যযুগীয় সময় থেকেই রয়েছে এবং এটি খনিজ, ভিটামিন ও শর্করাগুলির খুব ভাল এবং প্রাকৃতিক উৎস। ২০১৬ সালে কিশমিশ বার্ষিক ১.২ মিলিয়ন মেট্রিক টন উৎপাদন হয়েছিল, যা বোঝায় যে শুকনো ফলগুলির মধ্যে কিশমিশ বেশ জনপ্রিয়। বাণিজ্যিকভাবে, উচ্চ-গ্রেড কিশমিশ তৈরি করতে ফলের ডিহাইড্রেশন ব্যবহার করা হয়।

বাচ্চাদের কিসমিস দেওয়া কি নিরাপদ?

বাচ্চাদের জন্য শুকনো আঙুর খাওয়া শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভাল প্রমাণিত হতে পারে। যাইহোক, এগুলি আকারে ছোট হওয়ায় সর্বদা এগুলি গলায় আটকে শিশুর দম বন্ধ হওয়ার ঝুঁকি থাকে। অন্যান্য রূপগুলিতে শিশুদের ডায়েটে এগুলি অন্তর্ভুক্ত করা ভাল কাজ করতে পারে। কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করে, এই শুকনো আঙ্গুর বাচ্চাদের দেওয়া কেবল নিরাপদই নয় তবে তাদের বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী।

কিশমিশের পুষ্টির মান

কিশমিশগুলি প্রায়শই রান্না, বেকিং, মদ তৈরিতে ব্যবহার করা হয় বা স্রেফ নিয়মিত স্ন্যাকস হিসাবে খাওয়া হয়। এই ক্ষুদ্র কিশমিশের স্বাস্থ্যে উপকারিতা প্রচুর। প্রায়শই “প্রকৃতির ক্যান্ডি” হিসাবে উল্লেখ করা হয়, কিশমিশগুলিতে চিনির পরিমাণ বেশি এবং পরিমিত পরিমাণে সেবন আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী বলে প্রমাণিত হয়।

  • প্রচুর পরিমাণে ফাইবারের কারণে, এগুলি একবারে খাওয়ার পরে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে এবং আমাদের পাচনতন্ত্র পরিষ্কার করতেও সহায়তা করে।
  • কিশমিশ আয়রনের একটি দুর্দান্ত উৎস যা লোহিত রক্তকণিকা তৈরির জন্য শরীরের প্রয়োজন।
  • উচ্চ গ্লুকোজ এবং ফ্রুক্টোজ থাকার কারণে এগুলি ওজন বাড়ানোর স্বাস্থ্যকর উৎস হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে।
  • এই সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন ও খনিজগুলির উৎস হওয়ার পাশাপাশি, এগুলি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, রক্তাল্পতা এমনকি ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা দেখিয়েছে।
পুষ্টিগুণ প্রতি ১০০ গ্রামে পরিমাণ পুষ্টিগুণ প্রতি ১০০ গ্রামে পরিমাণ
জল ১৫.৪৩ গ্রাম শক্তি ২৯৯ ক্যাল
প্রোটিন ৩.০৭ গ্রাম সমগ্র লিপিড ০.৪৬ গ্রাম
শর্করা ৭৯.১৮ গ্রাম ডায়েটারি ফাইবার ৩.৭ গ্রাম
চিনি ৫৯.১৯ গ্রাম ক্যালসিয়াম ৫০ এমজি
আয়রন ১.৮৮ এমজি ম্যাগনেসিয়াম ৩২ এমজি
ফসফরাস ১০১ এমজি পটাশিয়াম ৭৪৯ এমজি
তামা বা কপার ০.৪ এমজি ভিটামিন বি১ ও বি২ ০.২ এমজি
সোডিয়াম ১১ এমজি জিঙ্ক ০.২২ এমজি
ভিটামিন সি ২.৩ এমজি থিয়ামিন ০.১০৬ এমজি
রাইবোফ্লোবিন ০.১২৫ এমজি নিয়াসিন ০.৭৬৬ এমজি
ভিটামিন বি৬ ০.১৭৪ এমজি ফোলেট ৫ ug
ফ্যাট ০.৫ এমজি ম্যাঙ্গানিজ ০.৩ এমজি
ভিটামিন ই ০.১২ এমজি ভিটামিন কে ৩.৫ ug

বাচ্চাদের স্বাস্থ্যে কিশমিশের উপকারিতা

বাচ্চাদের জন্য কিশমিশের প্রচুর স্বাস্থ্যসংক্রান্ত উপকার রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি হল:

  • এগুলি ভাল মানসিক ও শারীরিক বিকাশের জন্য অত্যন্ত মূল্যবান হতে পারে।
  • ফসফরাস, ক্যালসিয়াম এবং পটাসিয়ামের মতো খনিজগুলিতে উচ্চ, কিসমিস একটি শিশুর স্বাস্থ্যকর বিকাশের জন্য দুর্দান্ত।
  • শুকনো আঙুর খাওয়া স্মৃতিশক্তি উন্নত করতে সহায়তা করে।
  • কিশমিশে থাকা উচ্চ ফাইবার একটি দুর্দান্ত রেচক এবং সঠিক হজমে সাহায্য করে।
  • কিশমিশ শিশুর দেহে অ্যাসিড-ক্ষারীয় ভারসাম্য বজায় রাখতে সহায়তা করে।
  • জ্বর চলাকালীন, বাচ্চাদের শুকনো আঙুরের জল দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, কারণ এটি ব্যাকটিরিয়া ও ভাইরাল সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।

আপনার বাচ্চাকে কখন কিশমিশ দেওয়া শুরু করবেন

মায়েদের মধ্যে একটি সাধারণ জিজ্ঞাসা হল, শিশুরা কোন বয়সে কিশমিশ খেতে শুরু করতে পারে? বাচ্চারা যখন কঠিন খাবার খেতে সক্ষম হয় তখন ৬-৮ মাস বয়সের মধ্যে কিশমিশ খাওয়া শুরু করতে পারে। এছাড়াও, শিশুর নিজে নিজে সোজা হয়ে বসতে সক্ষম হওয়া উচিত এবং তার বুড়ো আঙুল ও তর্জনীর মাঝে ছোট ছোট জিনিস ধরতেও সক্ষম হওয়া উচিত। প্রথমে রস, পিউরি বা চটকানো রূপে কিশমিশ দেওয়া যেতে পারে যতক্ষণ না শিশু শক্ত খাবার আইটেমের সাথে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। পরে, ছোট টুকরো করেও এগুলি দেওয়া যেতে পারে। সর্বদা নিশ্চিত করুন যে কোনও প্রাপ্তবয়স্কের তত্ত্বাবধানে শিশুকে শক্ত খাবার খাওয়ানো হচ্ছে।

Related Post

আপনার বাচ্চাকে কতটা শুকনো আঙুর দেওয়া উচিত

কিশমিশে শর্করার পরিমাণ বেশি এবং প্রতিদিন অল্প করে দেওয়ার সুপারিশ করা হয়। বাচ্চাদের জন্য, প্রাথমিকভাবে প্রতিদিন ১-২ চামচ শুকনো আঙুরের রস দেওয়াই যথেষ্ট। এটি প্রতিদিন ধীরে ধীরে ২-৩ চামচ রসে বাড়ানো যায়। একবার বাচ্চার বয়স ১ বছরের বেশি হয়ে গেলে ২-৩ চামচ ম্যাসড বা চটকানো অথবা কাটা কিশমিশ দেওয়া যেতে পারে।

কীভাবে শিশুর ডায়েটে কিশমিশ অন্তর্ভুক্ত করবেন

আপনার বাচ্চাকে কিশমিশ থেকে প্রাপ্ত সমস্ত স্বাস্থ্যকর উপকারিতা দেওয়ার জন্য, কীভাবে বাচ্চাদের কিশমিশ দেওয়া যায় তা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমে বাচ্চাকে গোটা কিশমিশ এমনকি চটকানো আকারেও শিশুর সাথে পরিচয় করিয়ে দেবেন না। বাচ্চাদের জন্য শুকনো আঙুরের জল দিয়ে শুরু করা যায়। আস্তে আস্তে রস, পিউরি বা কাটা কিশমিশ খাওয়ানো শুরু করুন যা অন্যান্য খাদ্যের অংশের সাথেও মিশ্রিত করা যায়। এটি খাবারে স্বাদ যুক্ত করে এবং হজম উন্নত করতে সহায়তা করে।

বাচ্চাদের শুকনো আঙুর দেওয়ার কি কোনও প্রতিকূল প্রভাব আছে?

শিশুর স্বাস্থ্যের উপর এর কোনও প্রতিকূল প্রভাবের সম্ভাবনা বিরল। তবে, অবশ্যই সর্বদা অ্যালার্জি এবং কিশমিশে শিশুর দম বন্ধ হওয়ার ঝুঁকি খুঁজে বের করতে হবে। তাছাড়া, বাচ্চাদের ক্যান্ডি দেওয়ার সময় যে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত, কিশমিশ দেওয়ার সময় এগুলির চটচটে ও চিবানোযোগ্য টেক্সচারের কারণে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। ঘুমের আগে কিশমিশ খাওয়ানো থেকে বিরত থাকুন, কারণ এগুলি মাড়ি ও দাঁতে লেগে থাকে এবং দাঁতের সমস্যা হতে পারে। অন্যান্য খাবারের সাথে কিশমিশ খাওয়া তাদের মাড়ির সাথে লেগে থাকা এড়াতে এবং আরও ভাল হজমে সহায়তা করতে পারে।

আপনার বাচ্চাকে কিশমিশ দেওয়ার সময় নেওয়ার জন্য সাবধানতা

প্রথমে কিশমিশ ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি শিশুর ক্ষতি করতে পারে এমন কোনও অতিরিক্ত রাসায়নিক বা অশুদ্ধি দূর করবে। এগুলি যথাযথভাবে ধুয়ে নেওয়ার পরে সেগুলি কেটে বা চটকে করে বাচ্চাকে দেওয়া যায়। কাটা টুকরো দেওয়ার সময়, শ্বাসরোধের কোনও চিহ্নের জন্য নজর রাখুন। সেবনের পরে ব্রাশ করার অভ্যাসটি মুখের কোনও ব্যাকটেরিয়াজনিত সমস্যা রোধ করতে পারে।

সুস্বাদু, সহজেই পাওয়া যায় এবং পুষ্টিকর, কিশমিশ বাচ্চাদের জন্য একটি নিখুঁত স্ন্যাক। তবে, সন্তানের সাথে পরিচিত অন্য যে কোনও খাবারের মতো, তাদের অবশ্যই সন্তানের বয়স এবং পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা মাথায় রেখে দেওয়া উচিত।

Share
Published by
প্রিয়াংকা কুণ্ডু