শিশুর ব্রণর জন্য ঘরোয়া 10 টি প্রতিকার

শিশুর ব্রণর জন্য ঘরোয়া 10 টি প্রতিকার

কে তার বন্ধু এবং পরিবারের কাছে তার বাচ্চার ছবি দেখাতে ভালবাসে না? সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক মাধ্যম বৃদ্ধির কারণে, এখন বিশ্বের সাথে আপনার শিশুর ছবিগুলি শেয়ার বা ভাগ করার সুযোগ আপনার রয়েছে। তবে, কখনও কখনও একটি অসুবিধা এটিতে বাধা হয়ে দাঁড়ায় – ব্রণ।

aniview

শিশুর ব্রণ এমন একটি দুশ্চিন্তা যা প্রত্যেক মা এর মুখোমুখি হন। শিশুর ব্রণ প্রাকৃতিকভাবে নিরাময় হয়ে যায়, কিন্তু কোনো পিতামাতা তাদের ছোট্টটির ত্বকের উপর লাল দাগ এবং ফুসকুড়ি দেখতে ভালবাসেন না। রাসায়নিক-ভিত্তিক পদার্থ ব্যবহার করলে আপনার শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে কারণ তাদের ত্বক সংবেদনশীল; তাই যত্ন নেওয়া আবশ্যক। শিশুর ব্রণর ক্ষেত্রে জনপ্রিয় ঘরোয়া প্রতিকারগুলি সম্বন্ধে এবং আপনি স্বাভাবিকভাবেই এটির কিভাবে চিকিৎসা করতে পারেন সে সম্পর্কে আরও জানতে নীচে পড়তে থাকুন।

কিভাবে শিশুর ব্রণ থেকে প্রাকৃতিকভাবে পরিত্রাণ পাওয়া যায়?

শিশুর ব্রণ চিকিৎসা পরিমন্ডলে নিওনেটাল ব্রণ নামে পরিচিত। এই ধরনের ব্রণ শিশুদের হওয়া সম্পূর্ণ স্বাভাবিক এবং প্রায় দুই মাস বয়সী শিশুদের হয়। সাধারনত, এটি সময়ের সাথে সাথে নিজে নিজেই চলে যায়, তবে যদি আপনি প্রাকৃতিকভাবে আপনার ছোট্টটিকে চিকিৎসা করাতে চান তবে আপনি ঘরোয়া প্রতিকারগুলি বেছে নেওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। ঘরোয়া প্রতিকার সংবেদনশীল ত্বকের জন্য আদর্শ এবং টপিকাল ঔষধ এবং ওটিসি ওষুধের মত আপনার শিশুর ক্ষতি করে না। উপরন্তু, এগুলি সস্তা এবং সহজেই পাওয়া যায়, যা তাদের আরও সুবিধাজনক করে তোলে।

এখানে শিশুর ব্রণের জন্য সেরা প্রাকৃতিক প্রতিকারগুলির মধ্যে 10টি রয়েছে যা আপনি আজ চেষ্টা করে দেখতে পারেন।

১. অতিরিক্ত ভার্জিন নারকেল তেল

অপরিশোধিত জৈব নারকেল তেল বা অতিরিক্ত ভার্জিন নারকেল তেল আপনার শিশুর ত্বককে ঠান্ডা করে এবং আর্দ্র রাখে। কেবল কয়েকটি ড্রপ প্রয়োগ করে এবং আস্তে আস্তে প্রভাবিত এলাকায় দিনে চারবার পর্যন্ত এটি লাগালে, ব্রণ পরিষ্কার হয়ে যায়। নারকেল তেল সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং ফুসকুড়ির জন্য একদম উপযুক্ত।

২. ভুট্টার স্টার্চ

ভুট্টার স্টার্চ হল শিশুদের ব্রণর প্রতিকারগুলির মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রতিকার; কেবল এই কারণে যে আপনি আপনার রান্নাঘরে এবং আপনার চারপাশের প্রতিটি মুদি দোকানে এটি খুঁজে পেতে পারেন।   শুধু জলের সাথে এটি মিশিয়ে প্রভাবিত এলাকায় প্রয়োগ করলে একটি পার্থক্য লক্ষ্য করতে পারবেন । এটি স্বাভাবিকভাবেই ত্বকেকে শুকিয়ে দেয় এবং একটি যাদুমন্ত্রের মতো ব্রণ নিরাময় করে!

ভুট্টার স্টার্চ

৩. বুকের দুধ

বুকের দুধ হল শিশুর ব্রণ এবং ডায়াপারজনিত ফুসকুড়ির অমোঘ প্রাকৃতিক ওষুধ। আপনার ছোট্টটিকে এটি যে পুষ্টি দেয় সেটিও যেন আমরা ভুলে না যাই। কিছুটা বুকের দুধ নিন এবং এতে একটি তুলোর বল ডোবান। ব্রণ নিরাময়ের জন্য প্রভাবিত এলাকায় আস্তে আস্তে তুলোর বলটি বুলিয়ে দিন।

৪. ভিনিগার

ভিনিগার ত্বকের ব্যাকটেরিয়া হত্যা করে এবং চামড়া থেকে অবাঞ্ছিত তেল এবং ময়লা শুষে নেয়। ঘনীভূত ভিনিগার ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন, যেহেতু এটি শিশুর চামড়া পুড়িয়ে দেবে। 1 ভাগ ভিনিগারে 10 ভাগ জল দিয়ে পাতলা করুন। মিশ্রণের মধ্যে কিছুটা তুলো ডুবান। এখন মৃদুভাবে প্রভাবিত এলাকায় বুলিয়ে দিন। আপনি যদি নিশ্চিত না হন যে আপনার বাচ্চা ভিনিগারে কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাবে তাহলে নিরাপদ থাকতে, মুখের পরিবর্তে দেহের অন্য অংশে (যেমন কব্জির নিচের দিকের প্রভাবিত এলাকায়) প্রয়োগ করুন এবং দেখুন যে সেই এলাকাটি লাল হয়ে যায় কিনা বা প্রদাহ হয় কিনা। এরকম হলে, প্রয়োগ করবেন না।

ভিনিগার

৫. মধু এবং লেবু

মধু এবং লেবু স্বাভাবিকভাবেই ত্বক পরিষ্কার করে এবং পুষ্ট করে, এবং এমনকি সবচেয়ে সংবেদনশীল ধরনের ত্বকের জন্যও ভাল কাজ করে। প্রাকৃতিকভাবে ব্রণ নিরাময়ের জন্য, সমান অনুপাত মধু এবং লেবু মিশ্রিত করে এটি প্রভাবিত এলাকায় প্রয়োগ করুন। চিকিৎসা সম্পূর্ণ করার জন্য, প্রায় 25 মিনিটের জন্য এটি ছেড়ে রাখুন এবং উষ্ণ জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

৬. ডায়েট

আপনি যদি একজন বুকের দুধ খাওয়ানো মা হন এবং আপনার ছোট্টটিকে ব্রণের অস্বস্তির মধ্য দিয়ে যেতে দিতে না চান, তবে তা করার সর্বোত্তম উপায় হল আপনার ডায়েটটি পরিবর্তন করা। মিষ্টি বা টক খাবার খাওয়া বন্ধ করুন এবং দুগ্ধজাত দ্রব্যগুলি খাওয়া এড়িয়ে যান বা কমান। তৈলাক্ত খাবার বাদ দিয়ে কিমচি, কেফির, এবং মিসোর মতো খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। পাশাপাশি লেবুজাতীয় ফলও এড়িয়ে যান।

ডায়েট

৭. জৈব ডিটারজেন্ট দিয়ে কাপড় ধোন

জৈব এবং রাসায়নিক-মুক্ত ডিটারজেন্টগুলি দিয়ে আপনার শিশুর জামাকাপড় পরিষ্কার করতে ভুলবেন না। কখনও কখনও পদার্থ থেকে রাসায়নিক কাপড়ের মধ্যে ঢুকে যায় এবং ব্রণ আরো খারাপ অবস্থায় চলে আসে বা ফেটে যায়। এটি প্রতিরোধ করার সেরা উপায় হল প্রাকৃতিক ও রাসায়নিক-মুক্ত ডিটারজেন্টগুলি ব্যবহার করা। আপনার বাচ্চার জন্য যে পোশাকের উপাদান ব্যবহার করছেন তা-ও পরীক্ষা করে দেখুন এবং আপনার বাচ্চাকে এটি পরতে দেওয়ার আগে সেটির প্রস্তুতকারক বা রিটেলারের সাথে ক্রস-চেক বা পুনর্নিরীক্ষণ করুন।

৮. চন্দনকাঠের লেই

চন্দনকাঠের লেই ত্বকের ক্ষুদ্র ব্রণর দাগগুলি চিকিৎসার জন্য উপযুক্ত। শুধু চন্দনকাঠের লেইয়ের একভাগের সাথে দুইভাগ সরিষার তেল মিশিয়ে ব্রণ-প্রবণ এলাকায় এটি হালকাভাবে প্রয়োগ করুন। এটি তার শীতল প্রভাব এবং প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত, এইভাবে ব্রণর প্রাকৃতিকভাবে চিকিৎসা করা হয়ে থাকে।

চন্দনকাঠের লেই

৯. জইচূর্ণ (ওটমিল)

ওটমিল হল ব্রণ এবং ফোড়ার একটি অপ্রথাগত, কিন্তু কার্যকর প্রতিকার। তবে, এটি চোখের নিচের এলাকার জন্য উপযুক্ত নয়। আপনার শিশুর শরীর, হাত বা পায়ে যদি ব্রণ হয় তবে ওটমিল ভাল কাজ করবে। 1/3 কাপ ওটমিল নিন এবং একটি ব্লেন্ডারে রাখুন যতক্ষণ না এটি সূক্ষ্ম গুঁড়াতে পরিণত হয়। উষ্ণ জলের সাথে এই গুঁড়াটি মিশিয়ে দিন এবং আপনার বাচ্চাকে প্রায় 8-10 মিনিটের জন্য বাথটবের দ্রবণে ভিজতে দিন। জল দিয়ে ধোবেন না এবং আস্তে আস্তে আপনার সন্তানকে একটি নরম তোয়ালে দিয়ে শুষ্ক করে নিন। ওটমিল শিশুদের চোখের মধ্যে জ্বালা সৃষ্টি করে, তাই আমরা মুখে প্রয়োগ করার প্রস্তাব দিই না।

১০. ট্যালকাম পাউডার

ট্যালকাম পাউডার তার শীতল প্রভাবের কারণে শিশুর ব্রণ এবং ডায়াপারজনিত ফুসকুড়ি চিকিৎসা্র জন্য জনপ্রিয় এবং এটি লোমকূপগুলিকে না বুজিয়ে ত্বকের শুষ্কতা বজায় রাখতে সহায়তা করে। পাউডারে থাকা শুকানোর উপাদানটি অভ্র না ভুট্টার স্টার্চ তা নিশ্চিত করতে লেবেলটি ভালো করে চেক করুন। আপনার হাতের তালুতে ট্যালকাম পাউডারের সামান্য অংশ ছিটিয়ে নিন, এবং আপনার শিশুর ব্রণ-প্রভাবিত মুখের উপর আস্তে আস্তে ঘষে নিন। সেরা ফলাফলের জন্য আপনার আঙুলের ডগাগুলি ব্যবহার করুন। আপনার শিশু যেন পাউডারটি শ্বাস না নেয় তা নিশ্চিত করুন কারণ এটি ক্ষতিকারক।

ট্যালকাম পাউডার

মনে রাখার মতো সতর্কতা এবং পরামর্শ

এখানে বাচ্চাদের ব্রণকে আরও খারাপ অবস্থায় যাওয়া থেকে আটকাতে বা প্রথমেই নির্মূল করতে কয়েকটি সতর্কতা এবং পরামর্শ দেওয়া আছে-

  • রাসায়নিক-ভর্তি ডিটারজেন্ট এবং পরিষ্কারক এজেন্ট ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন। জৈব ক্লিনজার এবং ডিটারজেন্ট ব্যবহারের দিকে লক্ষ্য রাখুন যা সংবেদনশীল ত্বকের জন্য ক্ষতিকারক হয় না। বাড়িতে তৈরি অ্যালকোহল মুক্ত শিশুর ওয়াইপ ব্যবহার করা বাঞ্ছনীয়।
  • আপনার অল্প বয়স্ক বাচ্চাদের বেশি পোশাকের উপর পোশাক পরাবেন না। পোশাকের উপর পোশাক পরালে তাপ আটকে যায় এবং এবং ঘাম জমা হয়ে ব্রণকে আরও খারাপ অবস্থায় নিয়ে যায়।
  • আপনার বাচ্চার তৈলাক্ত খাবার দেবেন না বা নিজে জাঙ্ক খাবার খাবেন না।
  • আপনার শিশুর দেহে কখনও টপিক্যাল মলম বা ওভার-দ্য-কাউন্টার ঔষধ প্রয়োগ করবেন না, কারণ এই পর্যায়ে তাদের ত্বক খুব সংবেদনশীল হয়।
  • আপনার শিশুর ছয় থেকে আট মাস বয়স হলে ব্রণ ফিরে আসতে পারে। উপরের ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবেই এটি চিকিৎসা্ করতে ভুলবেন না, কারণ দুই মাস এবং তার বেশি বয়সের জন্য ব্রণ ফুটে ওঠা সাধারণ বলে মনে করা হয়।
  • আপনার শিশুকে তার ব্রণ-প্রভাবিত এলাকায় স্পর্শ করতে দেবেন না। ঐ ফোড়া এবং লাল ফুসকুড়িগুলিতে কোনো ঘষা, খোঁচা দেওয়া, হাত বুলানো বা আঁচড়ানো চলবে না। এগুলি করা থেকে বিরত রাখার জন্য আপনার শিশুর হাতকে ঢেকে রাখুন।
  • ফোড়াগুলিতে যদি পুঁজ হয়ে যায় এবং সংক্রমণের দিকে নিয়ে যায়, তবে তখন কী করতে হবে তা শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।
  • শুধুমাত্র সাধারণ উষ্ণ জল দিয়ে আপনার শিশুকে স্নান করান। সাবান এবং শ্যাম্পু ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।
  • প্রতিবার খাবারের পরে, উষ্ণ জলের মধ্যে ডুবিয়ে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে আপনার শিশুর মুখটি অবশ্যই মুছে দিন।
  • লোশন বা ক্রিম ব্যবহার করবেন না কারণ তারা ব্রণ বাড়িয়ে দেয়।

সাবান যুক্ত ওয়াশক্লথ বৃত্তাকার গতিতে ব্যবহার করে আপনার শিশুর মুখকে শুকনো করে দিন। স্ক্রাবিং এড়াতে হবে কারণ এটি ত্বকের অবস্থা খারাপ করে।

প্রতিদিন আপনার শিশুর মুখ ধুয়ে দিন। গরম জল এবং একটি হালকা, বিশেষত জৈব, ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করুন।

আপনার বাচ্চার ব্রণ ফুটে উঠলে তাকে খুব অস্বস্তির মধ্যে দিয়ে যেতে হবে না কারণ এটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। সুন্দরভাবে এটিকে ঠিক করে দেওয়ার জন্য আপনি উপরের ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করতে পারেন বা এগুলিকে নিজে নিজেই চলে যেতে দিন। ব্রণ গায়েব হতে একটু সময় লাগে, তাই অবশ্যই ধৈর্য ধরুন।

আপনি যদি উপরের প্রতিকারগুলি চেষ্টা করেন, তবে রোজ সেগুলি করতে ভুলবেন না যাতে আপনার ছোট্টটি হাসতে থাকে এবং পরবর্তী ইন্সটাগ্রাম ক্লিকের জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকে।