সিজারিয়ান প্রসবের পরে কীভাবে ঘুমোবেন

সিজারিয়ান প্রসবের পরে কীভাবে ঘুমোবেন

প্রসবের পরের নিদ্রাহীন দিনগুলি এবং রাতগুলিকে কোনও মা কখনও ভুলতে পারে না। পিতা-মাতা হওয়া নিঃসন্দেহে একটি চমৎকার অভিজ্ঞতা, কিন্তু সন্তানের জন্মের পরের প্রাথমিক কয়েক সপ্তাহ কঠিন হতে পারে। সি-সেকশন প্রসবের পরে আরোগ্য কালটি বেদনাদায়ক হবে এবং আপনার অনেক ধৈর্য ও সাহসের প্রয়োজন হবে। তবে মনে রাখবেন, এটি একটি অস্থায়ী পর্ব এবং আপনি এটির মধ্যে দিয়ে পারি দিয়ে ফেলবেন।

aniview

সি-সেকশনের পরে ঘুমাতে কেন অসুবিধা হয়?

কখনও কখনও, গর্ভাবস্থাকালীন এবং গর্ভাবস্থার পরে, হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি ও পেটের আয়তন বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে কোনও মহিলার শ্বাসনালী সহজে কাজ করতে পারে না। এই অবস্থাটি অবস্ট্রাকটিভ স্লিপ অ্যাপনিয়া (ওএসএ) নামে পরিচিত এবং প্রচুর মহিলাদের মধ্যে এটি দেখা যায়। যথাযথ শ্বাসপ্রশ্বাস না চলায় এবং শ্বাসনালীর অবস্থা খারাপ হওয়ার কারণে ঘুমোতে অসুবিধা হয়, যখন আপনি ঘুমানোর সময় খুঁজে পান। সি-সেকশন প্রসবের পরে মায়েরা অনিদ্রা, অবসন্নতা ও হতাশায় ভোগার আরও একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হল যন্ত্রণা। তবে, সঠিক যত্ন এবং সতর্কতা নিলে আপনি দ্রুত আরোগ্য লাভ করতে সক্ষম হবেন।

সিজারিয়ানের পরে ঘুমের অবস্থান কীভাবে ঘুমের গুণমানকে প্রভাবিত করে?

সিজারিয়ানের পরে ঘুমের অবস্থান কীভাবে ঘুমের গুণমানকে প্রভাবিত করে?

যদিও ব্যথার ওষুধগুলি প্রায়শই আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তে সহায়তা করে, একটি উপযুক্ত ঘুমের অবস্থান ভাল শ্বাস প্রশ্বাস এবং একটি গভীর ঘুম নিশ্চিত করবে। সর্বাধিক আরামদায়ক ঘুমের অবস্থান বেছে নিলে আপনার পেটের পেশীগুলির স্ট্রেন কমিয়ে দেবে, ফলস্বরূপ, আপনার কাটাস্থানের উপর চাপ হ্রাস করবে।

সি-সেকশন প্রসবের পরে কোন ঘুমের অবস্থানগুলি গ্রহণ করার পক্ষে সেরা?

ঘুমানোর কোনও বিশেষ অবস্থান নেই যা সবার জন্য কাজ করে। এক মায়ের জন্য যা কাজ করে তা অন্যের জন্য কাজ নাও করতে পারে। এটি একটি পরীক্ষা এবং ত্রুটির প্রক্রিয়া যা আপনার ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত অবস্থান না পাওয়া পর্যন্ত চালিয়ে যেতে হবে। আপনি সি-সেকশন প্রসবের পরে ঘুমানোর এই সেরা উপায়গুলি থেকে চয়ন করতে পারেন।

১ . চিৎ হয়ে

প্রচুর মহিলা একটি অস্ত্রোপচারের পরে চিৎ হয়ে ঘুমানোকে সবচেয়ে আরামদায়ক অবস্থান হিসাবে ভোট দেয়। এই অবস্থানে, আপনার কাটাস্থানটি আর কোনও চাপের মধ্যে থাকবে না। আপনি আপনার হাঁটুর নীচে বালিশও রাখতে পারেন। একমাত্র খারাপ দিকটি হ’ল আপনি যখন উঠে বসবেন বা বিছানা থেকে উঠবেন তখন আপনার পেটে চাপ পড়তে পারে। কয়েক সপ্তাহ পরে, আপনার পাশের দিকে ফিরে শুতে চেষ্টা করুন যদি এটি করতে খুব বেশি না লাগে। উচ্চ রক্তচাপ যুক্ত মহিলাদের এটি না করতে পরামর্শ দেওয়া হতে পারে।

২. পাশের দিকে ফিরে

পাশের দিকে ফিরে

আপনি প্রসবের পরেই আপনার পাশ ফিরে ঘুমাতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতে পারেন। বাম পাশে ফিরে ঘুমানো সর্বোত্তম রক্ত প্রবাহ এবং হজমে সহায়তা করে (যা আপনার খুব প্রয়োজন)। আপনি আপনার পেট এবং নিতম্বকে অবলম্বন দিতে বালিশ ব্যবহার করতে পারেন। সি-সেকশন ডেলিভারির পরে পাশ ফিরে ঘুমানোর একটি সুবিধা হ’ল আপনি নিজের কনুইতে ভর দিতে পারেন এবং আপনার হাত দিয়ে ঠেলে উঠে বসতে এবং বিছানা থেকে উঠতে পারেন। পরামর্শ – নিজেকে ধাক্কা দিয়ে ওঠানোর সময় শ্বাস ছাড়ুন।

৩. দেহের উপরের অংশকে উঁচুতে রাখা

যে বন্ধুদের সিজারিয়ান প্রসব হয়েছে তারা আপনাকে বলবে যে বালিশ হল আপনার জীবনরক্ষক। তারা সত্যই সঠিক বলে। আরামদায়ক বালিশের গাদাতে ঠেসান দিয়ে থাকুন যাতে আপনার পুরো উপরের শরীরটি, কেবল মাথা নয়, উঁচুতে থাকে। এই অবস্থানটি ওএসএ আক্রান্ত অনেকের জন্য আরও ভাল শ্বাস প্রশ্বাস এবং সহজ ঘুমের সুবিধা দেয়।

৪. একটি রিক্লাইনারে

অনেক মহিলার পক্ষে, যে কোনও অবস্থানেই আরাম পাওয়া সত্যিই কঠিন হয়ে পড়ে। তবে অনেক মায়েরা দাবি করেছেন যে তারা রিক্লাইনার বা দোলনা চেয়ারে ঘুমাতে পেরেছেন। অবশ্যই, এটি বিছানায় ঘুমানোর মতো মনে হয় না, তবে এটি সেখান থেকে ওঠা সহজ করে তোলে। স্বাচ্ছন্দ্যে বুকের দুধও খাওয়াতে পারেন।

আপনার আরোগ্যকালে ঘুমের গুণমান উন্নত করার জন্য পরামর্শ

নতুন মায়েদের জন্য স্বল্প সময়ের জন্য হলেও গভীর ঘুম হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। যেহেতু ভাল মানের ঘুম আপনার দ্রুত আরোগ্যে সহায়তা করে, তাই এখানে মাথায় রাখার মতো কয়েকটি পরামর্শ রয়েছে:

  • আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুসরণ করুন এবং ভাল ঘুম পেতে আপনার ওষুধ বন্ধ করবেন না।
  • পরিশ্রম করবেন না, সিঁড়ি বেয়ে ওঠা বা আপনার বাচ্চার চেয়ে ভারী ওজন তোলা থেকে বিরত থাকুন। নাহলে আপনার জটিলতা হওয়ার এবং ঘুম হারানোর ঝুঁকি আসতে পারে। আপনি যদি আপনার শরীরকে নিরাময়ের জন্য সময় দেন তবে ব্যথা অবশেষে হ্রাস পাবে এবং আপনাকে আরও ভাল ঘুমাতে সহায়তা করবে।
  • এটি বলা হয় যে, সর্বোত্তম পরিমাণে নড়াচড়া ও ব্যায়াম রক্ত সঞ্চালনকে বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং নিরাময় প্রক্রিয়াটি দ্রুত করতে পারে। আপনি একটু ভাল বোধ করার পরে, আপনার বাড়ির মধ্যে এবং আশেপাশে অল্প হাঁটাচলা শুরু করতে পারেন। এটি আপনাকে রাতে ভাল ঘুমাতে সহায়তা করবে।
  • সঠিক খাওয়াদাওয়া খুব গুরুত্বপূর্ণ। অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি খাবার এবং বেরি ও ব্রোকলির মতো ভিটামিন সি-এর পরিমাণ বেশি থাকা খাবারগুলি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। বাদাম এবং বীজগুলিও খেতে পারেন।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য নতুন মায়ের ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক নয়। আমরা আপনাকে প্রচুর পরিমাণে জল পান করার এবং আপনার ডায়েটে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিই। আরও ভাল অন্ত্রের গতির জন্য আপনি মল নরমকারী ব্যবহার করা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন। বিরক্তিকর পেট অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে এবং ঘুমানো কঠিন করে তুলতে পারে।
  • প্রথম কয়েক সপ্তাহে ঘন ঘন বিছানা থেকে উঠা এড়িয়ে চলুন। আপনার স্বামী এবং পরিবারকে অনুরোধ করতে পারেন যখন প্রয়োজন হবে তখন আপনার শিশুকে আপনার কাছে নিয়ে আসার জন্য।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

সি-সেকশনের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার পরে কীভাবে ঘুমাতে হয় সে সম্পর্কে আমরা প্রচুর প্রশ্ন পাই। এখানে আমরা তাদের কয়েকটি জবাব দিয়েছি।

১. ঘুমানোর সময় যদি আমি গড়িয়ে উপুড় হয়ে যাই, সেটা কি ঠিক আছে?

যদিও গড়িয়ে উপুড় হয়ে যাওয়া আপনার নিয়ন্ত্রণে নেই তবে ইচ্ছাকৃতভাবে আপনাকে উপুড় হয়ে ঘুমানোর পরামর্শ দেওয়া হয় না। এর কারণ কাটাছেঁড়ার স্থানটিতে ব্যথা থাকবে এবং আরোগ্যের প্রক্রিয়ায় থাকবে। ব্যথা ধীরে ধীরে সময়ের সাথে সাথে কমে গেলে, আপনি যদি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন তবে উপুড় হয়ে ঘুমাতে পারেন।

২. সি-সেকশনের পরে আমার পক্ষে বিছানা থেকে বের হওয়া খুব কঠিন। কোনো পরামর্শ আছে?

আপনার ঘুমের অবস্থান থেকে ওঠার সময়, যে কোনো একপাশে ফিরুন এবং আপনার কনুইয়ে ভর দিয়ে উঠুন। আপনি পরিবারের কোনও সদস্যকে এটিতে সহায়তা করতেও বলতে পারেন। প্রথমে আরামদায়কভাবে বসুন এবং তারপরে আপনার পাগুলি বিছানার পাশের দিকে ঝুলিয়ে দিন। আপনার পা মেঝেতে রাখুন এবং এক মিনিট রেখে তারপর উঠে দাঁড়ান। এই পদ্ধতিটি অনুসরণ করলে সকালে বিছানা থেকে বেরিয়ে আসা সহজতর হবে।

সি-সেকশনের পরে ভাল ঘুমের জন্য এগুলি বেশ কয়েকটি স্বাচ্ছন্দ্যময় উপায়। আপনার মানসিক স্বাস্থ্যকে আপনাকে প্রথম অগ্রাধিকার দিতে হবে। একটি স্বাস্থ্যকর এবং ইতিবাচক মন শারীরিক আরোগ্যকে ত্বরান্বিত করে। আপনার সন্তানের এখন যা প্রয়োজন তা হল আপনার খুশী থাকা।