শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য

শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য

বিভিন্ন রকম গবেষণায় দেখা গেছে যে পুরো পৃথিবীর জনসংখ্যার শতকরা 10-15% মানুষ হজম সংক্রান্ত বিরক্তিকর রোগগুলিতে ভোগে এবং 20% চিরস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্যের শিকার হয়। এই কোষ্ঠকাঠিন্যের আক্রমণ আপনার শিশুটির পক্ষে খুবই কষ্টদায়ক এবং অসুবিধার সৃষ্টি করতে পারে, বিশেষ করে যখন তাদের পরিপাক প্রণালী ও মল নিঃসরণের অঙ্গগুলি সবে পরিণত হচ্ছে। শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্যের আরও বিবরণ এবং তাকে এড়িয়ে চলার পদ্ধতিগুলি জানতে  পড়তে থাকুন।

aniview

কোষ্ঠকাঠিন্য আসলে কী?

এটি এমন একটি অবস্থা যা অতিশয় শক্ত ও মাটির মত রঙের মল উৎপাদনের কারণে হয় এবং উহার বহিঃস্করণ অতিশয় যন্ত্রণাদায়ক ও কঠিন হয়ে থাকে। চিকিৎসাবিজ্ঞানে, একজনকে তখনই কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত বলে মনে করা হয়, যখন সপ্তাহে তার তিনবারেরও কম মলত্যাগ হয়ে থাকে। জীবন পরিচর্যার বিভিন্ন কারণে সৃষ্ট, অন্ত্রের ঠিকঠাক কাজ না করার ফলস্বরূপ, প্রচুর সংখ্যক প্রাপ্তবয়স্করা কোষ্ঠকাঠিন্যের শিকার হয়। সঠিক খাদ্যাভ্যাসের অভাব, আচরণ অথবা বিশেষ কোনো শারীরিক অসুস্থতাই বেশিরভাগ সময় কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হয়ে থাকে। এইসব অবস্থাগুলি শিশুদের মধ্যেও দেখা যায়।

অনেক সময় নবজাতক থেকে হামাগুড়ি দেওয়া শিশুদের মধ্যে, যাদের স্বভাবতঃই কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রবণতা থাকে, তারা এটির দ্বারা আক্রান্ত হয়। এটা তাদের বিশিষ্ট পরিপাকপ্রণালীর পদ্ধতির জন্যও হতে পারে, নির্দিষ্ট কিছু খাদ্য বা পানীয়ের প্রতি শিশুটির শারীরিক প্রতিক্রিয়া অথবা দৈনিক তরল বা খাদ্য গ্রহণের মতো কারণেও হতে পারে। যদিও দীর্ঘমেয়াদে কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রতিরোধ ও উপশম অবশ্যই সম্ভব, তবে এটি প্রতিরোধের আদর্শ উপায় হিসেবে, আপনার শিশুর পরিপাক প্রণালিকে সুস্থ রাখার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন।

কোষ্ঠকাঠিন্যের পুনরাবৃত্তির ফল শুধুমাত্র যন্ত্রণাদায়ক অভিজ্ঞতাই নয়। শিশুরা যখন এর ভুক্তভোগী হয় তখন তা তারা জানাতেও অক্ষম হয়, আবার তারা যখন তাদের হাঁটতে শেখার বয়সে পদার্পন করে, এই শক্ত মল উৎপাদনের প্রবৃত্তি তাদের সমগ্ৰ পেট পরিষ্কারের কার্যধারার পক্ষে বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারে। এইভাবে তাদের কোষ্ঠ সাফ হয়ে যন্ত্রনামুক্ত হতে আরও বেশি দেরি হয়, যা পরিস্থিতিকে আরো খারাপ করে তোলে।

একটি কোষ্ঠকাঠিন্যযুক্ত শিশুর দিনের পর দিন মলত্যাগ বন্ধ থাকতে পারে। এমনকি কিছু ক্ষেত্রে, ক্রমাগত কোষ্ঠকাঠিন্যের ফলে গুহ্যদ্বারের বা পায়ুছিদ্রের পেশীগুলোর  সংকোচন-প্রসারণশীলতা হ্রাস পায়, যার ফলে অসংযমিত মলত্যাগের লক্ষণ পরিদর্শিত হয়ে থাকে। তার মানে গ্যুহদ্বারের নিকট অবস্থিত স্নায়ুগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে যার ফলে গ্যাস নিঃসরণের সময় অকাঙ্খিতভাবে মল নিঃসরণ হয়ে থাকে, বা চরম পরিস্থিতিতে মলত্যাগের উপর সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যায়।

কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণগুলি

দিনের পর দিন একটি নবজাতকের মলত্যাগ না হওয়াটা কোনো সমস্যার লক্ষণ নাও হতে পারে। তবে, কোষ্ঠশুদ্ধির সময় যদি শিশুটি খুবই অসুবিধা বোধ করে বা অস্বাভাবিক আচরণ করে, তবে অভিভাবকগণকে তার প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে।

শিশু দ্বারা নিঃসৃত মলের আকৃতিপ্রকৃতির পর্যবেক্ষণের মাধ্যমেও অভিভাবকরা বুঝতে পারবেন যে তার কোষ্ঠকাঠিন্য হয়েছে কিনা। শিশুদের ক্ষেত্রে মলত্যাগ কত ঘন ঘন হয় তার দ্বারা তাদের অন্ত্রের কার্যকরিতা বিচার করা যায় না।

এইজাতীয় পরিস্থিতির জন্য অনেক কারণ জড়িত থাকতে পারে:

1. শক্ত খাদ্য

শিশুদের প্রথম প্রথম শক্ত খাবার দেওয়ার সময় তাদের কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়াটা বিরল ঘটনা নয় কারণ তখন তাদের ক্ষুদ্র অপরিণত পাকযন্ত্রটির সাথে শক্ত খাবারের নতুন পরিচিতি ঘটে। যে খাবারগুলো শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য ঘটায় তার মধ্যে রয়েছে কলা, ভাত, শস্যদানা, পনির এবং গাজর যা পুষ্টিকর, কিন্তু কম ফাইবারযুক্ত – যে ফাইবার ঠিকভাবে মলত্যাগের জন্য প্রয়োজনীয়। তাই, অল্প পরিমাণে এগুলি খাওয়া শুরু করতে হবে এবং সাথে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে যাতে খাদ্যে রাফেজের পরিমাণ বাড়ে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

2. ফরমূলা দুগ্ধ

ফরমূলা দুধে প্রোটিন উপাদান আপনার শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য সৃষ্টি করতে পারে এবং কখনো কখনো অন্য উপাদান দিয়ে তৈরি অন্য ব্র্যান্ডের দুধ খাওয়ালে এই পরিস্থিতিতে সাহায্য করবে। প্রচলিত বিশ্বাসের বিপরীতে, ফরমূলা দুধে থাকা লোহা কোষ্ঠকাঠিন্যে অবদান রাখে বলে দেখা যায়নি।

3. ডিহাইড্রেশন

যদিও আপনার নবজাতক শিশু মূলত তরল খাদ্যের উপর নির্ভর করে থাকে, যখন সে বুকের দুধ বা ফরমূলা দুধ একচেটিয়াভাবে খেয়ে থাকে। তখনও হয়ত সে তার শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পর্যাপ্ত জল না পেতে পারে। সেইসব ক্ষেত্রে, তার জলের চাহিদা পূরণ করতে তার মল থেকে জল শোষিত হয় এবং ফলস্বরূপ মল শক্ত হয়ে যায়। প্রতিবার খাওয়ার পরে তাকে একটু জল পান করালে বা ফলের রস খাওয়ালে তার জলের চাহিদা পূরণকে নিশ্চিত করা যায়। যদিও ছয় মাস বা তার কমবয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র স্তন্যদুগ্ধ বা ফরমূলা দুধ খাওয়ানোরই উপদেশ দেওয়া হয়, তবে এই পথ্যটি কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত শিশুকে আরাম দিতে পারে।

4. দুগ্ধজাত প্রোটিনে অ্যালার্জি

মায়ের দ্বারা উদরস্থ দুগ্ধজাত দ্রব্যের উপাদানগুলি শিশুর কাছেও পৌঁছতে পারে, যে শিশুর হয়তো দুগ্ধজাত প্রোটিনে অসহিষ্ণুতা আছে। এর ফলে তার কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।

5. হরমোনের ভারসাম্যহীনতা

মাঝে মাঝে যখন প্রাকৃতিক হরমোন একটি সুষম পদ্ধতিতে মুক্তি পায় না, শিশুদের এবং সেইসাথে প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রেও, তখন অনেক ধরনের উপসর্গ দেখা দিতে পারে। শিশুদের ক্ষেত্রে শুষ্ক ত্বক, ধীর বৃদ্ধি, ক্লান্তি এবং মাঝে মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

লক্ষণ ও উপসর্গসমূহ

নবজাতক থেকে সদ্য হাঁটতে শুরু করা শিশুর অভিভাবক হিসেবে আপনিই তার যে কোন উপসর্গকে সবচেয়ে ভালভাবে লক্ষ করতে পারেন, আর সেগুলির মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হলো মলত্যাগ।

স্তন্যপানকারী শিশুদের মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রকোপ অতি বিরল যাইহোক, শিশুদের মলত্যাগের ক্ষেত্রে, অনেক কিছুকেই স্বাভাবিক বলে ধরা হয়। জানা যায় যে স্তন্যপানকারী শিশুরা সমস্ত দুগ্ধই তাদের পুষ্টির জন্য ব্যবহার করে, তাই তাদের মলত্যাগের পরিমাণ কখনো কখনো খুবই কম হয়, এমনকি দশ দিনে একবারও হতে পারে। তবে, ফরমূলা খাওয়া শিশুদের ক্ষেত্রে এটি সত্য নয়। তাদের মলত্যাগ দিনে 3 থেকে 4 বারও হতে পারে।
আপনার শিশুর দিনচর্যা যাইহোক না কেন, আপনি তার সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে যাবার চেষ্টা করুন। যাইহোক, বিকাশের মাইলফলক, বয়স এবং শক্ত খাবারের সাথে পরিচয়ের সাথে সাথে পরিবর্তন আসবেই। মাঝে মধ্যে, আপনি হয়তো লক্ষ্য করবেন যে আপনার শিশুর মল ত্যাগ করতে কষ্ট হচ্ছে বা তার ডায়াপারে মলের ছোট ছোট বল লক্ষ্য করবেন যদি কোষ্ঠকাঠিন্য ক্রমাগত হতে থাকে, তাহলে শিশুটি বিরক্ত হতে পারে বা কাঁদতে পারে। বেশিরভাগ বাবা-মারা চিন্তিত হয়ে পড়েন যখন কিছু দিনের জন্য  তাদের শিশুর মলত্যাগ একদম বন্ধ হয়ে যায়। গুরুতর ক্ষেত্রে, মলাশয়ের দেওয়ালে ছিঁড়ে যাওয়ার কারণে মলের সাথে রক্ত বেরোতে পারে।

কিভাবে শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্যতা প্রতিরোধ করা যায় ?

  • খাদ্য গ্রহণের পরিবর্তনের জন্য, নিয়মিত বৃদ্ধির ধারাবাহিক ক্রম এবং শারীরিক পরিবর্তনের কারণে, মাঝে মধ্যেই শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য হয়। যাইহোক, পিতা-মাতা হিসাবে, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধের কিছু ব্যবস্থা আপনি নিতে পারেন।
  • সঠিক পরিমাণে বিভিন্ন ফল এবং শাকসবজি সমৃদ্ধ খাদ্যের সাথে ভালো পরিমাণে পানীয় তার খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার মাধ্যমে সুষম খাদ্যাভ্যাস নিশ্চিত করুন।
  • আপনার শিশুটি বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে তাকে বিভিন্ন অঙ্গ সঞ্চালন বা ব্যায়ামের সঙ্গে অভ্যস্ত করান।
  • শিশুটিকে পর্যাপ্ত সময় ধরে উপুড় করে শুইয়ে রাখুন।
  • প্রতিবার খাওয়ার পর মলত্যাগের জন্য তাকে উৎসাহিত করুন যাতে এটি একটি ভাল অভ্যাসে পরিণত হয়। এটি অন্ত্র পরিষ্কার করার জন্য শরীরের প্রাকৃতিক প্রবৃত্তির সাথে সামঞ্জস্য করে।

মলত্যাগের বিষয়ে যে কোনো নেতিবাচক চিন্তাধারা দূর করার মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদে শিশুর উপকার করে এবং মৌখিক বা অন্যান্য পুরষ্কারের মাধ্যমে ভাল অভ্যাসকে উত্সাহিত করে। এটা বিশেষ করে ভালো ফল দেয় যখন শিশু মল অসংযমিতার (ফেকাল ইনকন্টিনেন্স) সমস্যা থেকে ভুগছে এবং এটির জন্য মানসিকভাবে প্রভাবিত হয়।

আপনার বাচ্চার কোষ্ঠকাঠিন্যের কিভাবে চিকিত্সা করবেন?

যদিও বেশিরভাগ শিশুরই কোনো না কোনো সময়ে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়, এটি বেশিরভাগ সময়ই নিরাময় করা যায় যদি অবিলম্বে মনোযোগ দেওয়া হয়। এগুলো ব্যবহার করে কোষ্ঠকাঠিন্য ফিরে আসা প্রতিরোধ করতে পারেন আপনার শিশুর জন্য ঘরোয়া প্রতিকার।

1. দুধ পরিবর্তন করুন

যদি আপনার শিশুকে শুধু বুকের দুধ খাওয়ানো হয়, তাহলে আপনার খাদ্যতালিকার পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন এবং দেখুন যে আপনার খাওয়া কোনো খাবার থেকে আপনার সন্তানের কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে কিনা। একটি ফরমূলা খাওয়া শিশুর ক্ষেত্রে, দুধের ব্র্যান্ড পরিবর্তন করলে মাঝেমধ্যে উপকার পাওয়া যেতে পারে।

2. পানীয় গ্রহণের পরিমাণ বৃদ্ধি করুন

অল্প পরিমাণে আলবোখারা, নাশপাতি বা আপেলের রস খাওয়ান। যদি এগুলির স্বাদ তার পক্ষে বেশী জোরালো হয়, তাহলে সামান্য জল দিয়ে পাতলা করে দিন। আপনি দুধ খাওয়ানোর পরে এগুলি দিতে পারেন যাতে তার খিদে অপূর্ণ না থাকে।

3. ব্যায়াম

ব্যায়াম

যদি আপনার বাচ্চা ইতিমধ্যেই হামাগুড়ি দিতে শুরু করে থাকে, তাহলে এটি অঙ্গ সঞ্চালনের মাধ্যমে তার মলত্যাগে সাহায্য করে। যদি সে এখনও এই মাইলফলকে না পৌঁছে থাকে, তাহলে তার হজমে সাহায্য করার জন্য, তাকে চিত করিয়ে শুইয়ে তার পা দুটিকে বাইসাইকেল চালানোর মতো করে ঘোরান।

4. মালিশ

তার অস্বস্তি উপশম করার জন্য মৃদু পেটের মালিশ এবং নিয়মিত উপুড় করে শোয়ানো।

5. কঠিন খাবারের পরিবর্তন

ফলের দুটি অংশ ও সবজির তিনটি অংশ প্রতিদিন তার খাদ্যের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করুন। এই খাবারে থাকা ডায়েটারি ফাইবার আপনার শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য মোকাবিলা করতে সাহায্য করে এবং নিয়মিত মলত্যাগ করায়।

6. খাদ্যের ভর্তা

ফল এবং সবজির ভর্তা বানিয়ে শিশুকে দিলে শিশু একটি সহজপাচ্য পদ্ধতিতে কিছু ডায়েটারি ফাইবার পেতে পারে। যে সব কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগা শিশুরা এখনও শক্ত খাবার চিবাতে পারে না, বিশেষ করে তাদের ক্ষেত্রে ভর্তা খুব উপকারী।

7. মলাশয়ের উদ্দীপনা

যখন উপরোক্ত কোনো প্রতিকার থেকে আপনার ছোট্টটি আরাম পায় না, তখন এই প্রতিকারটি কিছু সাহায্য করতে পারে। আপনার আঙুল, সুতীর কাপড় বা রেকটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করে মলদ্বারের উপর একটু উদ্দীপনা তৈরি করলে, তা নিশ্চিত ভাবে শিশুর মলত্যাগের উদ্দীপক হিসাবে কাজ করবে। নিশ্চিত করুন যে আপনি এটি হালকা ভাবে করবেন এবং এছাড়াও ভ্যাসলিন ব্যবহার করে উদ্দীপকটিকে পিচ্ছিল করতে পারেন যাতে এটি শিশুকে আঘাত না করে।

8. সাপোজটরি

আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করে, আপনি আপনার শিশুর মল ত্যাগে সাহায্য করার জন্য সাপোজিটরি আনতে পারেন। আপনার শিশুর বয়স এবং অবস্থার উপর ভিত্তি করে, ডাক্তার ওষুধের পরিমাণ নির্ধারণ করতে পারেন। এগুলি মলদ্বার দিয়ে ভিতরে ঢোকাতে হয় এবং 15-30 মিনিটের মধ্যে মলত্যাগ করয়ে দেয়। এটি বিশেষভাবে সহায়ক হয় যদি শিশু আগে কঠিন মল বের করার কারণে মলদ্বারে ফাটল হয়ে কষ্টে থাকে।

9. জোলাপ

যখন প্রাকৃতিক জোলাপগুলি যেমন আলুবোখারার রস কাজ দেয় না, তখন আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে দোকান থেকে জোলাপ  ক্রয় করা উচিৎ। সতর্ক থাকুন যে অল্পবয়স্ক শিশুদের দ্রুত ডিহাইড্রেশন হতে পারে, তাই এগুলি শুধুমাত্র চিকিত্সার তত্ত্বাবধানে ব্যবহার করা উচিৎ।

কখন কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে হবে?

উপরে উল্লিখিত বেশিরভাগ ঘরোয়া প্রতিকার আপনার শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্যতে সাহায্য করবে। কিন্তু যদি এক বা একাধিক প্রাকৃতিক প্রতিকারের সমন্বয় কাজ না করে, তাহলে আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করা ঠিক হবে।

আপনার শিশু যদি অস্বস্তিতে থাকে বা জ্বরভাব থাকে, তাহলে কোনো অন্তর্নিহিত রোগ খুঁজে বের করার জন্য ডাক্তারি পরীক্ষার প্রয়োজন হতে পারে। বিশেষ করে যদি নিম্নলিখিত উপসর্গের পুনরাবৃত্তি ঘটে:

  • মল ত্যাগ করার চেষ্টায় শিশুটি খিটখিটে বা অস্বস্তিময় হয়ে ওঠে।
  • মল ত্যাগ করার জন্য চাপ দেওয়া সত্ত্বেও, কিছুই বের হয় না।
  • শিশুটির মলের সাথে রক্ত বের হয় অথবা আপনি মলদ্বারে ফাটল বা ফিসার লক্ষ্য করেন। এটি শিশুর জন্য বিশেষ বেদনাদায়ক হতে পারে এবং অবিলম্বে মনোযোগ দেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে।
  • যদি বারংবার কোষ্ঠকাঠিন্যের ফলে মলের অসংযমিতা দেখা দেয়। আপনি প্রায়ই ডায়পার ময়লা হতে দেখেন বা যখন শিশু গ্যাস পাস করে তখন তার সাথে স্বেচ্ছাহীন ভাবে মলও ত্যাগ করে।

দেখভালের কাজটা সহজ নয়। কিন্তু এটা খুব কঠিনও না যখন আপনি জানবেন যে আপনার সন্তানের কল্যাণের জন্য কী করা সবচেয়ে ভাল। শুধু নিশ্চিত করুন যে কোষ্ঠকাঠিন্য যেন আপনার অস্বস্তির অন্যতম কারণ না হয়। অথবা আপনার সন্তানের অস্বস্তির কারণ না হয়। কয়েকটি সহজ পদক্ষেপ অনুসরণ করুন এবং আপনার ছোট্টটির মধ্যে যে কোনো প্রাথমিক লক্ষণ ধরতে উৎসুক চোখ রাখুন।