সদ্য হাঁটতে শেখা শিশুদের পেটে ব্যথার জন্য 10 টি সেরা ঘরোয়া প্রতিকার

সদ্য হাঁটতে শেখা শিশুদের পেটে ব্যথার জন্য 10 টি সেরা ঘরোয়া প্রতিকার

কোনও শিশুর পেট ব্যথার মূল্যায়ন করা বেশ কঠিন,বিশেষ করে যখন কোনও শিশু তার যন্ত্রণা সম্পর্কে স্পষ্ট করে বোঝাতে অক্ষম হয়।পেট ব্যথা খুব সাধারণ একটা ব্যাপার এবং প্রত্যেকেরই কোনও না কোনও সময়ে এটির অভিজ্ঞতা হয়ে থাকে।কিন্তু বাচারা এটি এখন প্রতি সময়ে অনুভব করে, এবং যেকোনও সময় যেকোনও কিছু খাওয়ার প্রতি তাদের প্রবণতার কারণে এটা তাদের মধ্যে যখন তখন হয়ে থাকে।সদ্য হেঁটে চলা ছোট বাচ্চাদের পেট ব্যথা হওয়ার পিছনে আরও বিভিন্ন অন্যান্য কারণ আছে।কিন্তু ভাল বিষয় হল যেটা,এগুলি খুব সাধারণ কয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকারের দ্বারাই চিকিৎসা করা যেতে পারে।পেট ব্যথার বহু কার্যকর প্রাকৃতিক প্রতিকার আছে যেগুলি আপনার টলমল করে হেঁটে চলা ছোট্ট সোনাকে দ্রুত উপশম দেবে।

aniview

টলমল করে হেঁটে চলা শিশুদের পেট ব্যথার জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার সমূহ

আপনার সন্তানের পেট ব্যথা করার অভিযোগ শুনে যদি বহু নিদ্রাহীন রাত্রি কাটানোর অভিজ্ঞতা আপনার থেকে থাকে,তবে চিন্তা করবেন না।এখানে ছোট শিশুদের পেট ব্যথার জন্য বেশ কিছু প্রতিকারের উল্লেখ করা হল।এই প্রতিকারগুলি শীঘ্র তার পেট ব্যথার নিরাময় করবে এবং সে অনেক ভাল অনুভব করবে।

১. আপনার সন্তানকে হাইড্রেট বা জলয়োজন রাখুন

আপনার সন্তানকে হাইড্রেট বা জলয়োজন রাখুন

মিষ্টি ছাড়া যেকোনও চা প্রদান করুন,যেমন মিন্থল অথবা আদার চা আপনার সন্তানকে দিন তাকে হাইড্রেট রাখতে।এগুলি তার পেটে স্নায়ুর ব্যথাকে প্রশমিত করবে এবং তার পেট যন্ত্রণা কমাতে সাহায্য করবে।যতক্ষন না সে ভাল বোধ করে তাকে দুগ্ধজাত পণ্য অথবা ভাজা/তেলের জিনিসগুলি দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।তার খিদে পেলে আপনি তাকে টোস্ট অথবা ওটমিল দিতে পারেন।যদি তার পেট ব্যথার সাথে বমি হয়ে থাকে,তাকে কোনওরকম কঠিণ খাবার খাওয়াবেন না,ব্যথা সম্পূর্ণ রূপে কমার আগে পর্যন্ত তাকে তরল খাদ্যাভ্যাসের মধ্যেই রাখুন।

২. উষ্ণ সেঁক দিন

পেট ব্যথার জন্য একটি অন্যতম নিরাপদ এবং কার্যকর প্রতিকার হল গরম সেঁক।গরম সেঁক দেওয়ার সবচেয়ে ভাল বিষয়টি হল এর কো্নও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই এবং এটি দ্রুত উপশম সরবরাহ করে।যদি আপনি একটা হিট প্যাড ব্যবহার করেন, তবে তাপের সর্বনিম্ন স্তর নির্বাচন করুন এবং সেটিকে বাচ্চার পেটের উপরে রাখুন।কিন্তু এটি সরাসরি স্থাপন করবেন না।যদি আপনার হিট প্যাড না থাকে,একটি কাঁচের বোতল ব্যবহার করুন,এটিতে উষ্ণ গরম জল পূর্ণ করে সেটিকে একটি কাপড় জড়িয়ে নিন, ব্যাস আপনার উষ্ণ কম্প্রেসর একদম প্রস্তুত।তবে আপনি যে হিট প্যাড বা জলের বোতল ব্যবহার করছেন সেটি যেন উষ্ণ থাকে কিন্তু গরম নয় সেই ব্যাপারটি নিশ্চিত করুন,যেহেতু আপনি চান না যে আপনার সন্তানকে আহত হোক। উষ্ণ সেঁক ভীষণ ভাবে কার্যকর।এই উত্তাপটি তার পেশীগুলিকে শিথিল করবে এবং পেট ব্যথা থেকে তাকে উপশম দেবে।

৩. হিং-এর প্রলেপ লাগান

হিং-এর প্রলেপ লাগান
সদ্য হেঁটে চলে বেড়ানো বচ্চাদের পেট ব্যথার ক্ষেত্রে আরেকটি কার্যকর প্রতিকার হল হিং।এটি দেহ থেকে অতিরিক্ত গ্যাস অপসারণ করার মাধ্যমে পেট যন্ত্রণাকে প্রশমিত করতে সাহায্য করে।কিছু হিং-এর গুঁড়োকে জলের সাথে মিশ্রিত করে একটি প্রলেপ তৈরী করুন এবং সেটিকে শিশুর তলপেটের চারপাশে প্রয়োগ করুন।আপনি যখন এটিকে তার পেটের উপর প্রয়োগ করেন তখন সেটি যাতে তার নাভির মধ্যে ঢুকে না যায় সেটি নিশ্চিত করতে তাকে অনুভূমিক অবস্থানে শোয়ানো সুনিশ্চিত করুন।আবার এটিও জানা যায় যে, হিং-এর গুঁড়োকে কিছুটা অলিভ অয়েল বা জলপাই তেলের সাথে মিশিয়ে নিয়ে সেটিকে তার তলপেট অঞ্চলে কিছু সময় ধরে মালিশ করলেও উপশম পাওয়া যায়।

৪. তাকে দই এবং অন্যান্য প্রোবায়োটিক খাবার খাওয়ান

প্রোবায়োটিক খাদ্যগুলি পেট ব্যথা প্রশমিত করতে সাহায্য করে।উদাহরণ হিসেবে বলা যায়,দই হল একটি প্রাকৃতিক প্রোবায়োটিক যা ডায়রিয়া এবং খিঁচুনি থেকে উপশম দেয়।এছাড়াও দই আবার ভাল ব্যাকটেরিয়ায় পূর্ণ যা অন্ত্রের জীবাণুগুলির ক্ষতির জন্য ক্ষতিপূরণ দেয়।সদ্য হাঁটতে শেখা ছোট বাচ্চাদের পেটে ব্যথার চিকিৎসায় আবার মেথি বীজও সাহায্য করে থাকে।যদি আপনার বাচ্চার পেটে ব্যথা থাকে তবে এক মুঠো মেথি দানা নিয়ে সেগুলিকে চূর্ণ করে নিন এবং তারপর সেটিকে দইয়ের সাথে মিশিয়ে তাকে দিন।এই সময় কোনও রকম ভারী খাবার দেওয়ার পরিবর্তে খিচুড়ি বা সাদা ভাত দিন।খিচুড়ি পেটের জন্য হালকা এবং আপনার সোনার যন্ত্রণাময় পেটে সেটি সহ্য হবে।

৫. ভেষজ চা প্রদান করুন

ভেষজ চা প্রদান করুন

টলমল করে হেঁটে চলা ছোট বাচ্চার পেট যন্ত্রণার উপশম ভেষজ চাও করতে পারে বলে জানা যায়।কিছু পরিমাণ আদাকে থেঁতো করে নিয়ে সেটিকে ঈষদুষ্ণ জলে কিছুক্ষণের জন্য ভিজিয়ে রাখুন।এরপর সেটিকে ছেঁকে নিয়ে সেই জলটিকে আপনার সন্তানকে পান করান যদি সে দু বছর বা তার বেশি বয়সী হয়ে থাকে।যদি সে দু বছরের কম বয়সী হয়ে থাকে তবে সে ক্ষেত্রে আপনি কিছুটা আদার রস নিয়ে সেটিকে তার নাভি-অঞ্চলের চারপাশে প্রয়োগ করতে পারেন।এছাড়াও আপনি কয়েকটি মেন্থল পাতা দিয়ে এক কাপ চা করে তার মধ্যে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে আপনার সোনাকে দিতে পারেন যেহেতু এটি পেট ব্যথায় স্বস্তিদানে সাহায্য করতে পারে।লেবু যেমন কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে সাহায্য করে থাকে, মেন্থল অন্ত্রের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াগুলিকে দূর করতে পারে।তবে আপনার সন্তানকে যেকোনও ভেষজ চা দেওয়ার আগেই ডাক্তারের সাথে একবার আলোচনা করে নেবেন।

৬. তাকে মধু দিন

মধু হল কার্বোহাইড্রেট,শর্করা এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির একটা ভাল উৎস।এটি বাচ্চাদেরকে দেওয়া যেতে পারে ভেষজ চা এবং উষ্ণ জলের সাথে মিশ্রিত করে।বাচ্চারা এটি শুধুশুধুও খেতে ভালোবাসে।যাইহোক,আপনার সন্তান যদি দুবছরের থেকেও ছোট হয় তবে তাকে মধু খাওয়াবেন না।

৭. তাকে ধীরে ধীরে মালিশ করুন

তাকে ধীরে ধীরে মালিশ করুন

উদর অঞ্চলের পেশী এবং স্নায়ুর ব্যথার উপশম করা যেতে পারে এর চারপাশে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে এবং এটি সহজেই অর্জিত হতে পারে সেই স্থানে ধীর প্রক্রিয়ায় মালিশ প্রদানের মাধ্যমে।আপনার হাতের তালু এবং আঙ্গুলগুলির দ্বারা আপনার সন্তানের নাভি অঞ্চলের চারপাশে ঘড়ির কাঁটার দিকে বৃত্তিয় গতিতে ধীরে ধীরে মালিশ করে দিন।চিবুক থেকে ক্রমশ নিচের দিকে তলপেটের নিচের অংশ পর্যন্ত একটা হালকা মালিশ এই পেট ব্যথায় উপশম আনার ক্ষেত্রে প্রমাণিত হতে পারে।

৮. ফুট রিফ্লেক্সোলজি প্রয়োগ করুন

আমাদের হাত ও পায়ের চেটোতে অনেকগুলি স্নায়ু রয়েছে যা হালকাভাবে চাপলে শরীরের নির্দিষ্ট অঞ্চলগুলিতে থেরাপিউটিক প্রভাব পড়তে পারে।আপনার ডান হাতের তালুতে আপনার সন্তানের বা পায়ের পাতাটিকে ধরুন।এবার তার পায়ের তলার গোড়ালিতে আপনার বা হাতের বুড়ো আংগুল দিয়ে অবিচলিত ভাবে চাপ প্রয়োগ করতে থাকুন।তার বা পা-পাতার নিচের দিকে মধ্যস্থ খাঁজ অঞ্চলে এক মিনিটের জন্য চাপ প্রয়োগ করুন এবং এটিকে 4-5 বার পুনরাবৃত্তি করুন।তৎক্ষণাৎ প্রভাব পাওয়ার জন্য খাবার সময়ের আগে এটি প্রয়োগ করুন।

ফুট রিফ্লেক্সোলজি প্রয়োগ করুন

৯. তাকে সঞ্চালন করান

যদিও এটি কোনও ঘরে করার মত ঘরোয়া প্রতিকার নয়,কিন্তু এটি এক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।যদি আপনার সন্তান পেট ব্যথার অভিযোগ জানায়,তবে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্টকে উদ্দীপিত করতে সহায়তা করতে পারে এমন কোনও পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করা হয়।মাঝারি মাপের ক্রিয়াকলাপ যেমন হাঁটাচলা এবং কোনও রকম আঁকা বাঁকার মত অতিরিক্ত সংযোজন ছাড়াই শুধু দৌড়ানো আপনার ছোট্ট সোনার পেটে স্বস্তি আনতে পারে।

১০. BRAT খাদ্যাভ্যাসের প্রয়োগ করুন

আপনি যদি সদ্য হাঁটতে শেখা কোনও বাচ্চার অভিভাবক হয়ে থাকেন,আপনাকে অবশ্যই BRAT খাদ্যাভ্যাসের প্রতি সচেতন হতে হবে।তবে আপনি যদি সেটি না হন তবে এটি কি সেটা খুঁজে বের করুন,কারণ এটি পেট ব্যথা থেকে উপশম আনতে পারে।কলা,ভাত(রাইস),আপেলশস এবং টোস্ট(BRAT)এই খাদ্যগুলি আপনার আদরের সোনাকে অনেক বেশি উপশম দিতে পারে যদি তার ডায়রিয়া হয়ে থাকে।এই খাবারগুলির মধ্যে কোনও মশলা থাকে না সুতরাং তা পরিস্থিতিকে আরও তীব্রতর করে তোলে না।এছাড়াও,এই মৃদু খাবারগুলি শিশুদের জন্য একদম আদর্শ যখন তারা অসুস্থ থাকে এবং এমন কিছু খেতে চায় যেগুলি তার স্বাদ কোরকের সাথে সহমত হয়।

টলমল করে হেঁটে চলা বাচ্চাদের পেট ব্যথা কীভাবে রোধ করবেন

আপনার সন্তান যদি ক্রমাগত পেট ব্যথার অভিযোগ জানায় তবে আপনার সেটি উপেক্ষা করা উচিত নয়।সেক্ষেত্রে নিশ্চই তার খাবারের কিছু ভুল হচ্ছে এবং আপনার তার জন্য প্রতিকার বের করা প্রয়োজন।এখানে কিছু পরামর্শ দেওয়া হল এই সমস্যা রোধ করতে যেগুলি আপনি অনুসরণ করতে পারেন।

১. কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য যদি আপনার বাচ্চার পেট ব্যথা হয় তবে তার খাদ্য তালিকায় আঁশ যুক্ত খাবার যোগ করুন।

২. অতিরিক্ত পরিমাণে খাবার আপনার বাচ্চাকে খাইয়ে ফেলবেন না।দিনে তিন বার বড় খাবারের পরিবর্তে তাকে কতগুলি ছোট খাবারে ভাগ করে বারে বারে অল্প পরিমাণে খাবার খাওয়ান।

৩. আপনার টডলার পদাধিকারী ছোট্ট সোনাকে প্রথম থেকে ঠিক ভাবে খাওয়ার আগে হাত ধোওয়ার অভ্যাসে উৎসাহিত করুন কারণ এটি আপনার শিশুকে ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচবে।

৪. ঘুমের ঠিক আগেই তাকে খাওয়ানো থেকে বিরত থাকুন কারণ এটি বদহজম করাতে পারে।

শিশুদের মধ্যে পেট ব্যথা একটা সাধারণ সমস্যা।যদি আপনার ছোট্টটার পেট ব্যথা করে তবে তাকে আরামদায়ক অবস্থানে বিছানায় শুয়ে দিন।আপনিও তার পাশে শুয়ে পড়ুন এবং পেট ব্যথা থেকে তার মনযোগ সরাতে তার প্রিয় গল্পগুলিকে পড়তে থাকুন।এছাড়াও আপনি উপরে উল্লিখিত প্রতিকারগুলি প্রয়োগ করতে পারেন তাকে পেট ব্যথা থেকে স্বস্তি দিতে।তবে,যদি এই প্রতিকারগুলি কাজ করতে ব্যর্থ হয়ে থাকে এবং আপনার বাচ্চা যন্ত্রণার দরুন নড়াচড়া করতেও অক্ষম হয়ে ওঠে অথবা যন্ত্রণা থেকে তার জ্বর এসে যায়,তাকে যত শীঘ্র সম্ভব ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া এবং তার প্রতি ডাক্তারী মনোনিবেশ করানোর প্রয়োজন।