নবজাতকের জন্ডিসের জন্য শীর্ষ 10টি ঘরোয়া প্রতিকার

নবজাতকের জন্ডিসের জন্য শীর্ষ 10টি ঘরোয়া প্রতিকার

জন্ডিস নবজাতকদের মধ্যে খুব সাধারণ রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বেশি হলে এটি হয় সাধারণত, নবজাতকের জন্ডিস ক্ষতিকারক হয় না এটি শিশুর জন্মের এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে সহজে নিজে নিজেই নিরাময় হয়ে যায় যে ক্ষেত্রে, বিলিরুবিনের মাত্রা বেশি থাকে, বাচ্চাকে হাসপাতালে ভর্তি করার দরকার হয় ঘরোয়া প্রতিকার, যদি সঠিকভাবে অনুশীলন করা হয়, তাহলে নবজাতকের জন্ডিস নিরাময় করতে পারে, তবে তা করার আগে সর্বদা একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন

aniview

নবজাতকের জন্ডিসের জন্য সেরা ঘরোয়া প্রতিকার

জন্মের সময় শিশুর জন্ডিসে আক্রান্ত হওয়া স্বাভাবিক বাড়িতে নবজাতকের জন্ডিসের চিকিৎসার বেশ কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে যা বিলিরুবিনের মাত্রাকে নীচে আনতে পারে নিচে নবজাতকের জন্ডিসের ভেষজ প্রতিকারগুলির একটি তালিকা এখানে রয়েছে

1. বার বার খাওয়ানো

বার বার খাওয়ানো

আপনার শিশুকে বার বার খাওয়ানো তার রক্ত প্রবাহ থেকে বিলিরুবিনকে দূর করতে এবং মল প্রস্রাবের মাধ্যমে বের করে দিতে সহায়তা করবে জন্ডিসযুক্ত শিশুরা অনেক বেশি ঘুমায়, তাই আপনাকে অবশ্যই খাওয়ানোর জন্য নিয়মিত বিরতিতে তাকে জাগিয়ে তুলতে হবে আপনি যদি তাকে বুকের দুধ না খাওয়ান তবে প্রতিবার খাওয়ানোর সময় তাকে দুটি আউন্স ফর্মুলা দুধ দিন

2. বিলিকম্বল

বিলি-কম্বল

বিলিকম্বল ব্যবহার করা নবজাতক জন্ডিসের চিকিৎসার একটি সুবিধাজনক এবং সস্তা উপায় এটি একটি পোর্টেবল ফোটোথেরাপি ডিভাইস যা বাড়িতেই নবজাতকদের জন্ডিসের কিছুটা পরিমাণে চিকিৎসা করতে কার্যকর

3. সূর্যালোক

সূর্যালোক

নবজাতকের জন্ডিসের প্রাকৃতিক প্রতিকার ব্যবহার করা এটির নিরাময়ের সেরা উপায় দৈনিক 1 – 2 ঘন্টা শিশুকে সূর্যের নীচে উলঙ্গ অবস্থায় রেখে এটি করা যায় তবে, দেখবেন যে শিশু যেন সকাল 8টার আগে সূর্যের তির্যক রশ্মিগুলি পায় সূর্যের রশ্মি রক্তে বিলিরুবিনের পরিমাণ হ্রাস করতে এবং জন্ডিস নিরাময়ে সহায়তা করবে

4. জিজিফাস জুজুবা ফলের নির্যাস

জিজিফাস জুজুবা ফলের নির্যাস

আপনার নবজাতকের পুরোপুরি নিরাময়ের আগে পর্যন্ত প্রতিদিন তিনবার 1 মিলি করে জিজিফাস জুজুবা ফলের নির্যাস দিন এটি রক্তের বিলিরুবিনকে বের করে দিয়ে এটির পরিমাণ হ্রাস করবে

5. সম্পূরকসমূহ

সম্পূরকসমূহ

জন্ডিসযুক্ত নবজাতক শিশুদের স্বাস্থ্যের কোনও সমস্যা নেই এমন শিশুদের তুলনায় বেশি খাওয়ানো উচিত যদি মায়ের বুকের দুধের পরিমাণ পর্যাপ্ত না হয় তবে আপনি আপনার নবজাতকের খাদ্যের সম্পূরক হিসাবে শিশু ফরমূলা দুধ দিতে পারেন

6. গাজর এবং পালং শাকের রস

গাজর এবং পালং শাকের রস

দুটি সবজিকে একসাথে কেটে রস বের করে নিন কয়েক ফোঁটা রস দিন

7. আঁখের রস

আঁখের রস

আঁখের অত্যাবশ্যকীয় চিনি লিভারকে জন্ডিসের সাথে আরও ভাল লড়াই করতে সহায়তা করে তাই কয়েক চামচ রস দিনে 3-4 বার দিন, এটি ছোট বাচ্চাদের জন্ডিস দূর করতে সহায়তা করবে তবে মনে রাখবেন যে রাস্তায় বিক্রেতাদের কাছ থেকে এটি না নিয়ে বাড়িতেই রসটি বের করতে হবে

8. গমঘাসের রস

গমঘাসের রস

বাচ্চাকে দেওয়া ফর্মুলা দুধে কয়েক ফোঁটা গমঘাসের রস যোগ করলে লিভার থেকে অতিরিক্ত বিলিরুবিন দূর করতে সহায়তা করে মায়েরও গমঘাসের রস এক গ্লাস পান করা উচিত যা তার বুকের দুধের মাধ্যমে শিশুর কাছে চলে যাবে

9. সানল্যাম্প থেরাপি

সান-ল্যাম্প থেরাপি

বাচ্চাকে একটি বিশেষ সান ল্যাম্পের নিচে রাখুন এটি একটি ঘরোয়া ফটোথেরাপি পদ্ধতি যা আপনার সন্তানের বিলিরুবিন মাত্রা হ্রাসের পরিবর্তে অবিচ্ছিন্নভাবে বাড়তে থাকলে করা যেতে পারে

10. টমেটো রস

টমেটো রস

টমেটো লাইকোপিনের সমৃদ্ধ উৎস এবং রক্তের জন্য ভাল টমেটোর রস যদি খুব সকালে গ্রহণ করা হয় তবে এটি লিভারকে স্বাস্থ্যকর করে তুলবে এবং জন্ডিস নিরাময়ে সহায়তা করবে যেহেতু নবজাতকরা টমেটোর রস খেতে পারে না তাই মায়েদের এটি পান করার পরামর্শ দেওয়া হয় পুষ্টিগুলি মায়ের বুকের দুধের মাধ্যমে নবজাতকের শরীরে পৌঁছে যাবে

নবজাতকের জন্ডিসের ভেষজ প্রতিকারও আছে, তবে সেগুলি সরাসরি প্রয়োগ করা যায় না তাই মায়ের ভেষজ পরিপূরক যেমন ড্যানডিলিয়ন চা, তুলসী চা, কমফ্রে চা ইত্যাদি গ্রহণ করা উচিত নবজাতক তার পরে মায়ের বুকের দুধের মাধ্যমে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট গ্রহণ করে যা তার দেহকে দূষিত পদার্থ থেকে মুক্ত করতে সহায়তা করে

যদি মনে হয় যে নবজাতক মায়ের বুকের দুধ থেকে জন্ডিস পেয়েছে, তবে আপনার অবিলম্বে শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করা উচিত

বেশিরভাগ নবজাতক জন্ডিস নিয়ে জন্মগ্রহণ করে এবং এর জন্য খুব কম ক্ষেত্রেই কোনও চিকিৎসার প্রয়োজন হয় এক বা দুসপ্তাহের মধ্যে জন্ডিস নিজে থেকে নিরাময় হয়ে যায় এই জাতীয় হালকা জন্ডিসের জন্য, আপনি ঘরোয়া প্রতিকারের সাহায্য নিতে পারেন (অবশ্যই আপনার শিশুর চিকিৎসকের পরামর্শের পরে) যদি বিলিরুবিনের মাত্রা নীচে যাওয়ার পরিবর্তে বাড়তে থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই আপনার নবজাতককে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে হবে আপনার ছোট্টটির জন্ডিস হলে চিন্তার কোনও কারণ নেই তবে এটিকে বিনা চিকিৎসায় ফেলে রাখা উচিত নয়