শিশুর ঠোঁট ফেটে যাওয়া – কারণ, লক্ষণ এবং প্রতিকার

শিশুর ঠোঁট ফেটে যাওয়া

আবহাওয়ার পরিবর্তন শুরু হওয়ার সাথে সাথে এটি বায়ুমণ্ডলীয় অবস্থাতে মূলত তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতাপার্থক্য নিয়ে আসে এর ফলে কিছু কিছু দিন আপনার ছোট্টটির ত্বক এবং ঠোঁট শুকিয়ে যেতে পারে, যার থেকে ঠোঁটে চিড়ে বা ফেটে যায় যেহেতু শিশুর ত্বক তার সমস্ত আর্দ্রতা দুধ থেকে পায়, তাই শিশুদের ত্বক প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় শুষ্ক হয়ে থাকে এবং পারিপার্শ্বিক অবস্থার পরিবর্তনের ফলে সহজেই প্রভাবিত হতে পারে

aniview

আপনার শিশুর ঠোঁট ফাটলে আপনার কি চিন্তা করা উচিত?

ছোট বাচ্চাদের ক্ষেত্রে বিশেষত যারা নবজাতক, তাদের শুষ্ক ঠোঁট সবসময় উদ্বেগের কারণ হওয়া উচিত ঠোঁটগুলি বিভাজিত হয়ে ফেটে যেতে পারে এবং ক্ষতও সৃষ্টি করতে পারে

অনেক সময় এই ফাটা ঠোঁটগুলি বাচ্চার অবিরাম নিজের ঠোঁট চোষার অভ্যাসের কারণে হয় যাইহোক, এগুলি অবশ্যই আপনার সন্তানের ডিহাইড্রেশন বা একটি স্বাস্থ্যের সমস্যার উপস্থিতির একটি শক্তিশালী লক্ষণ, যা ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়ার কারণ আবহাওয়ার পরিবর্তন এবং বাতাসের সংস্পর্শেও এটি হতে পারে, তবে যদি আপনার শিশুটি তার নাকের চেয়ে মুখ দিয়ে বেশি শ্বাস নিতে থাকে, তবে তার থেকেও ঠোঁট ফেটে যেতে পারে

বাচ্চাদের ঠোঁট ফাটার কারণগুলি কী কী?

শিশুর শুকনো ঠোঁটের কারণগুলি ব্যক্তিগত অভ্যাস থেকে শুরু করে পারিপার্শ্বিক পরিবেশের অবস্থা পর্যন্ত বিভিন্ন কারণে হতে পারে

১. ডিহাইড্রেশন

ডিহাইড্রেশনের কারণগুলি দ্বিগুণ হয় এর মধ্যে একটি মূলত আবহাওয়া, যা বেশিরভাগ শুষ্ক থাকলে শিশুর ত্বক থেকে বেশ কিছু আর্দ্রতা বের করে নিতে পারে বা সবসময় শিশুকে ঘামে ভেজাতে পারে একই সময়ে, যদি কোনও শিশুর যতগুলি ফিডের প্রয়োজন হয় ততগুলি পূরণ না হয়, তবে শরীরে জলের পরিমাণ কম থাকবে এবং ঠোঁটে শুকনো হয়ে যাবে

২. পুষ্টির ঘাটতি

ফাটা ঠোঁটের উপস্থিতি হল আরেকটি লক্ষণ যা পুষ্টির মান শিশুর পক্ষে পর্যাপ্ত না হওয়ার ইঙ্গিত দেয় যদি কোনও নবজাতকের শরীরে নির্দিষ্ট পুষ্টি এবং ভিটামিনের নিম্ন মাত্রা আছে বলে নির্ণীত হয়, তবে ঠোঁটে যে আর্দ্রতা স্বাস্থ্যকরতা থাকা উচিত তা পেতে পারে না প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকা শিশুর ক্ষেত্রে এটি আরও বেড়ে যায়

৩. অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়া

অ্যালার্জি একাধিক আকারে কোনও শিশুর দেহে থাকতে পারে, তবে তাদের মধ্যে কয়েকটি অ্যালার্জি কিছু নির্দিষ্ট ধরণের পোশাক পরার ফলেও ট্রিগার হতে পারে একটি সংবেদনশীল ত্বক যে কোনও লোশন বা ক্রিম বা এমনকি শিশুকে মুড়তে ব্যবহৃত হওয়া কাপড়েও প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে মা যদি একটি চ্যাপস্টিক ব্যবহার করেন এবং প্রায়শই শিশুকে চুমু খেতে থাকেন তবে সেটিও অ্যালার্জি সৃষ্টি করতে পারে

৪. মুখ দিয়ে শ্বাস নেওয়ার প্রবণতা

মুখদিয়েশ্বাসপ্রশ্বাস নিলে ঠোঁটের চারপাশ দিয়ে বাতাসের নিয়মিত যাওয়াআসা চলতে থাকে এই বায়ু সর্বদা তার পথে কোনও আর্দ্রতা পেলে তা গ্রহণ করবে এমন কোনো অসুস্থতা থাকলে যা থেকে বাচ্চাদের হাঁচি হয় বা নাক বন্ধ হয়ে যায়, তার থেকে কেবল মুখ দিয়ে শ্বাস নেওয়ার ঘটনাই ঘটে না, তার সাথে ফেটে যাওয়া ঠোঁটেরও কারণ হয়, যা শিশুদের আরও অস্বস্তিময় করে তোলে

৫. আবহাওয়ার ওঠানামা

শিশুদের একটি নিরাপদ এবং নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে থাকা দরকার, বিশেষত যখন তারা সবেমাত্র জন্মগ্রহণ করে তাদের ত্বক আমাদের চরম আবহাওয়ারতে অভ্যস্ত নয় যদি এটি একটি প্রখর গ্রীষ্ম বা শুকনো শীত বা সাধারণত এমন সময় হয় যখন বাতাস কঠোরভাবে তেজে প্রবাহিত হয়, তখন চারপাশের পরিবেশ প্রতিটি উৎস থেকে আর্দ্রতা শুষে নিতে পারে, ফলে আপনার ছোট্টটির ঠোঁট ফেটে যেতে পারে

৬. ঠোঁট চোষা বা চাঁটা

প্রাথমিক সপ্তাহগুলিতে কোনও কিছু চুষতে থাকার প্রবণতা খুব বেশি থাকে এর ফলে বাচ্চাদের জিহ্বা বাইরে বেরিয়ে আসে এবং তারা তাদের ঠোঁট অবিরাম চুষতে থাকে মুখের লালা ঠোঁটের উপর বেরিয়ে আসে যা পরে বাষ্পীভবন হয়ে ঠোঁট শুকিয়ে যায় এটি বার বার হওয়ার ফলে ঠোঁটের উপর ফাটল দেখা দেয়

ঠোঁট চোষা বা চাঁটাবুকের দুধ খাওয়ার কারণে কি বাচ্চাদের ঠোঁট ফেটে যায়?

একটি নবজাতক বুকের দুধ খাওয়ার জন্য সর্বাধিক পরিমাণ সময় ব্যয় করে, তাই এই দুধ খাওয়া এবং ফাটা ঠোঁটের উপস্থিতির মধ্যে একটি সংযোগ সৃষ্টি করে তবে খাওয়ানো শুধুমাত্র ঠোঁট ফাটার কারণ নয় অন্যদিকে বুকের দুধ ঠোঁট ফাটা নিরাময় করতে সাহায্য করতে পারে যদি শিশুটি স্তনের সাথে ভালভাবে আবদ্ধ থাকে এবং সারা দিন পর্যাপ্ত পরিমাণে দুধ পায় তবে শুকনো ঠোঁটের সম্ভাবনা হ্রাস পাবে বলে মনে করা হয়

শিশুর ফাটা ঠোঁটের লক্ষণ কী কী?

নবজাতকের ফাটা ঠোঁটের ক্ষেত্রে, যে লক্ষণগুলি এটিকে বেশ প্রকট করে তুলতে পারে তা নিচে রয়েছে:

  • আপনার নিজের তুলনায় শিশুর ঠোঁটগুলি বেশি শুকনো থাকছে
  • ঠোঁটের পৃষ্ঠের উপর ফাটল দেখা দেয় যা বেশ গভীর হতে পারে
  • ঠোঁটের চারপাশের ত্বক কালচে রঙের হতে শুরু করে
  • ঠোঁটে ব্যথা হয় এবং এগুলি খানিকটা লালচে ধরনের হয়
  • ফাটলগুলি গভীর হয় এবং অনেক সময় রক্ত বেরিয়ে আসে

আপনি কিভাবে একটি শিশুর ফাটা ঠোঁটের চিকিৎসা করতে পারেন?

একটি শিশুর ক্ষেত্রে, শুকনো ঠোঁটের চিকিৎসার জন্য একগুচ্ছ প্রাকৃতিক প্রতিকারের পাশাপাশি কয়েকটি কৌশল রয়েছে যা দ্রুত ত্রাণ আনতে পারে এবং যেকোনও অস্বস্তি দূর করতে পারে

১. শিশুনিরাপদ ঠোঁটের মলম

প্রাপ্তবয়স্কদের ব্যবহার করার সাধারণ মলম বা ক্রিম কখনো শিশুর ঠোঁটে প্রয়োগ করা উচিত নয় বাজারে এমন নির্দিষ্ট মলম পাওয়া যায়, যা বিশেষত নবজাতকের জন্য তৈরি করা হয় এগুলি প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করে তৈরি করা হয় যদিও সেগুলি প্রয়োগের আগে আপনার ডাক্তারের সম্মতি নেওয়া সর্বদা ভাল

২. পেট্রোলিয়াম জেলি

ল্যানোলিন থেকে তৈরি, এটি আপনার ছোট্ট সোনার ঠোঁটের শক্তিশালী ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে, ফাটলগুলি দ্রুত নিরাময়ে সহায়তা করে ল্যানোলিনের উপস্থিতি এটিকে মৃদু নিরাময়কারী করে তোলে এবং একেবারে সুরক্ষিত হয়, এমনকি যদি আপনার শিশুটি তার ঠোঁট চাটতে থাকে সেই ভাবে এটি খেয়ে ফেলে

এটির জন্য যা করতে হবে তা হল আপনার আঙুলের ডগায় অল্প পরিমাণে নিতে হবে এবং ধীরে ধীরে আপনার শিশুর ঠোঁটের উপর বুলিয়ে দিতে হবে রাতে ঘুমানোর সময় এগুলি ব্যবহার করার চেষ্টা করুন যাতে এটি বেশিক্ষণ ধরে থাকে এবং ঠোঁট নিরাময় হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সময়টি পায়

৩. নারকেল তেল

বেশ পুরানো এই প্রতিকার, অনেক পরিবার এই তেল ব্যবহার করতে পছন্দ করেন কারণ এটি বাড়িতে সহজলভ্য এই তেলের প্রধান উপাদান লরিক অ্যাসিড যা নিরাময় করে এবং বাচ্চাকেও প্রভাবিত করে না আপনার আঙ্গুলগুলি জীবাণুমুক্ত করুন এবং এটিতে কিছুটা তেল মাখান তারপরে এটি ঠোঁটে ঘষুন এবং যখনই শুকিয়ে যাবে তখনই আবার লাগান

নারকেল তেল

৪. স্তনবৃন্তের ক্রিম

এই ক্রিমগুলি দুটি জিনিস মাথায় রেখে তৈরি করা হয় এক, স্তনবৃন্তগুলি নিরাময় করা উচিত দুই, শিশু দুধ খাওয়ার সময় কিছু ক্রিম খেয়ে ফেলবে অতএব, এই ক্রিমটি আপনার শিশুর জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ এবং তার ঠোঁটে লাগালে, একই ধরণের কার্যকারিতা দেয় এগিয়ে যাওয়ার আগে কোনও ডাক্তারের সবুজ সংকেত নিন

৫. বুকের দুধ

ফাটা ঠোঁট নিরাময়ের সবচেয়ে নিরাপদ এবং সবচেয়ে প্রাকৃতিক উপায় আপনার স্তনবৃন্তটি আলতো করে চিপে কিছু দুধ তার ঠোঁটে লাগিয়ে দিন বা আঙুল দিয়ে বুলিয়ে দিন এটি তার ঠোঁটে ঘষবেন না দুধ ঠোঁটকে হাইড্রেটেড থাকতে দেয় এবং এর প্রাকৃতিক উপাদানগুলি নিরাময়কে ত্বরান্বিত করে

যদি আপনার সন্তানের দীর্ঘ দিন ধরে ফাটা ঠোঁট থাকে, তখন?

কোনও বাচ্চার দীর্ঘ দিন ধরে ফাটা ঠোঁট পুষ্টির ঘাটতি বা ভিটামিন এর অতিরিক্ত গ্রহণকেও ইঙ্গিত করতে পারে এমন বিরল উদাহরণ রয়েছে যেখানে শিশুরা কাওয়াসাকি রোগের আক্রান্ত হয়, যদিও সেক্ষেত্রে শুষ্ক ঠোঁটের সাথে জ্বর এবং লাল চোখ সহ আরও অনেক লক্ষণ থাকে সুতরাং যদি এটি দীর্ঘ দিন ধরে স্থায়ী হচ্ছে বলে মনে হয়, তবে আপনার সন্তানের পরীক্ষা করান

কীভাবে শিশুদের ঠোঁট ফাটা রোধ করবেন?

শিশুর ফাটা ঠোঁটের প্রতিকারের চেয়ে প্রথমে ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়া রোধ করা ভাল ঘরে সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখুন এবং প্রয়োজনে হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন আপনার বাচ্চাকে যথাযথ পোশাক দিয়ে ঢেকে রাখুন এবং ঘরের ভিতরেও সূর্যের রোদ বা প্রবল বাতাস থেকে রক্ষা করুন

বাড়তে থাকা বাচ্চাদের জন্য ফাটা ঠোঁট খুব সাধারণ একটি অবস্থা হতে পারে তবে শিশুর ত্বকের সংবেদনশীল প্রকৃতির জন্য এবং মুখের মাধ্যমে খাওয়ানোর উপর নির্ভরতার কারণে, এগুলি তাদের পক্ষে বেশ বেদনাদায়ক এবং অস্বস্তিকর হয়ে উঠতে পারে লক্ষণগুলি দেখা দেওয়ার সাথে সাথেই এটি সঠিকভাবে চিকিৎসা করলে, আরও তীব্র হয়ে ওঠা প্রতিহত করতে পারে এবং গোড়া থেকেই সমস্যাটির সমাধান করতে পারে