শিশুদের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা(নক্টারনাল এনুরেসিস)

শিশুদের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা(নক্টারনাল এনুরেসিস)

নক্টারনাল এনুরেসিস এমন একটি সমস্যা যা ছোট শিশুদের প্রভাবিত করে। তারা ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করে ফেলে এবং বাবা বা মা হিসাবে, এটি নিয়ে খুব বেশি সতর্ক হওয়ার দরকার নেই। এটি একটি সাধারণ ঘটনা যা সঠিক যত্ন এবং ভালবাসা দিয়ে পরিচালনা করা যায়।

aniview

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং কি?

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং হল ঘুমের মধ্যে বিছানায় অনৈচ্ছিক প্রস্রাব তখন হয় যে বয়সের পরে সাধারণত মূত্রাশয়ে নিয়ন্ত্রণ চলে আসে। এটি একটি বিকাশগত বিলম্ব এবং এটি কোন সংবেদনশীল সমস্যা বা কোন শারীরিক অসুস্থতা নয়। ৫% থেকে ১০% বেডবয়েটিংয়ের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট চিকিত্সাসংক্রান্ত কারণে হয়। তবে এটি কোন পারিবারিক ইতিহাসের কারণেও হতে পারে।

বিছানা ভেজানো এমন অনেক বাচ্চা আছে যাদের বাবামাও একই বয়সে এটি করতেন। এই অবস্থাটি অনেক বাবামা বা ডাক্তার নির্ধারণের জন্য বিবেচনা করেন না যতক্ষণ না শিশুটি ৫ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী হয়। এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা যা শিশু এবং তাদের পরিবারের জন্য সমস্যার হতে পারে।

একটি শিশুর নক্টারনাল এনুরেসিস তার অন্তর্নিহিত কোন রোগ বা অসুস্থতার লক্ষণ হতে পারে।

নক্টারনাল এনুরেসিসের প্রধান লক্ষণগুলি হল:

  • বারবার বিছানা ভেজানো
  • পোশাকে প্রস্রাব করা
  • প্রায় তিন মাস ধরে কমপক্ষে সপ্তাহে দুই বার ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করা।

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস কতটা সাধারণ?

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা। এটি ৫ বছর বা তার কম বয়সী প্রায় ৭% ছেলে এবং ৩% মেয়েদের মধ্যে হয়। এই সংখ্যাটি ১০ বছর বয়সী ছেলেদের মধ্যে ৩% এবং মেয়েদের ২%-এ নেমে যায়। শিশুরা বেশিরভাগই তাদের কৈশোরে এই সমস্যা থেকে মুক্ত হয়ে যায়, ১৮ বছর বয়সে প্রায় ১% ছেলেমেয়েদের এই ব্যাধিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

বেডওয়েটিংয়ের প্রকারগুলি

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বিছানায় প্রস্রাব করার দুইটি প্রকার রয়েছে –

  • প্রাইমারি নক্টারনাল এনুরেসিস (পিএনই)

এটি বিছানা ভেজানোর সর্বাধিক সাধারণ রূপ। এর অর্থ হল শৈশবকাল থেকেই কোন বিরতি ছাড়াই বিছানা ভেজানো অবিচল রয়েছে। এটির পুনরাবৃত্তি হতে থাকে এবং সেই শিশুদের প্রভাবিত করে যারা কখনও রাতে ঘুমনোর সময় শুষ্ক থাকেনি। এগুলিকে প্রাথমিক নক্টারনাল এনুরেসিস বলা হয়, যা কেবল রাত্রে ঘটে থাকে, এবং অন্যদিকে ডিউরনাল এনুরেসিস হল যা দিনেরবেলা ঘটে, যেমন প্রস্রাবের তীব্র প্রয়োজনীয়তা, ঘন ঘন হওয়া অথবা দিনের বেলা পোশাক বা বিছানা ভিজে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটে। এটি একটি উন্নয়নমূলক বিলম্ব যা সময়ের সাথে সমাধান হতে পারে। ডায়েটও শিশুদের মধ্যে এনুরেসিসকে প্রভাবিত করে

  • সেকেন্ডারি নক্টারনাল এনুরেসিস (এসএনই)

এটি পূর্ব যে শুকনো থাকতো এমন শিশুর ঘুমের সময় অনৈচ্ছিক প্রস্রাব করাকে বোঝায়। এটি মূত্রাশয়ের সংক্রমণের কারণে হতে পারে।

বেডওয়েটিংয়ের কারণ

নক্টারনাল এনুরেসিসের কারণগুলি নিম্নরূপ:

প্রাইমারি নক্টারনাল এনুরেসিস

প্রাইমারি বেডওয়েটিং এমন একটি সমস্যা, যেখানে শিশুটি রাতের বেলা কখনই তার মূত্রাশয়ে নিয়ন্ত্রণ পায়নি। এখানে কয়েকটি কারণ রয়েছে:

  • শিশুর শরীরে এখনও মূত্রাশয়ের সমস্যা রয়েছে
  • সারা রাত ধরে শিশু প্রস্রাব নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষম হয়
  • শিশুর মূত্রাশয় পূর্ণ হয়ে উঠলেও সে জেগে ওঠে না
  • সন্ধ্যা ও রাতে শিশু উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রস্রাব করে।
  • শিশুর প্রস্রাব করার খারাপ অভ্যাস থাকতে পারে। শিশুরা দীর্ঘ সময় ধরে প্রস্রাবের তাড়না অনুভব করে না এবং প্রস্রাব চেপে রাখে। অভিভাবকরা মুখের টান পড়া, চোখমুখ কোঁচকানো, উবু হয়ে থাকা বা পেট টিপে রাখা ইত্যাদি বিভিন্ন অভিব্যক্তি সম্পর্কে সচেতন হবেন যা শিশুরা প্রস্রাব আটকে রাখার জন্য ব্যবহার করে।
  • ক্যাফিন এবং মূত্রবর্ধক জিনিসের ব্যবহারের কারণে প্রস্রাবের উত্পাদন বৃদ্ধি পায়
  • দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং প্যান্টে মলত্যাগ করা।

বেডওয়েটিংয়ের কারণ

গৌণ বা সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং

সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং হল সেই অবস্থা যখন শিশুটি কমপক্ষে ১২ মাস এটি না করে আবার বিছানা ভিজিয়ে ফেলে। শিশুর বয়স বাড়ার সাথে সাথে এর প্রকোপগুলি বাড়তে থাকে। এর কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • মূত্রনালীর সংক্রমণ: এর ফলে জ্বালা হয়, প্রস্রাবের দৃঢ় তাড়না অনুভব হয় এবং ঘন ঘন প্রস্রাব হয়। সংক্রমণ কিছু শারীরিক অস্বাভাবিকতার কারণেও হতে পারে।
  • ডায়াবেটিস: যার ডায়াবেটিস রয়েছে তার প্রস্রাব ত্যাগ করার পরিমাণ বাড়বে।
  • শারীরবৃত্তীয় অস্বাভাবিকতা: এগুলি অঙ্গ, পেশী বা স্নায়ু বা মূত্রথলিতে অন্য কোন অস্বাভাবিকতার কারণে হতে পারে।
  • একটি স্নায়বিক সমস্যা: স্নায়ুতন্ত্রের যদি কোন ত্রুটি, আঘাত বা রোগ থাকে তবে এটি স্নায়বিক ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি করতে পারে যা প্রস্রাবকে প্রভাবিত করে।
  • সামাজিক বা মানসিক চাপ: বাবামায়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে পারিবারিক জীবনে চাপের কারণে বাচ্চারা বিছানা ভেজাতে পারে। জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলি, যেমন স্কুলে যাওয়া শুরু করা বা বাড়ি পরিবর্তন বিছানা ভেজানোর কারণ হতে পারে। যেসব শিশুরা শারীরিক বা যৌনভাবে নিপীড়িত হয় তারা ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করা শুরু করে।
  • জিনতত্ত্ব: এনুরেসিস জেনেটিকও হতে পারে, যার অর্থ যদি কোন বাবা বা মায়ের এই সমস্যা থাকে তবে তাদের সন্তানেরও একই সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে।

নক্টারনাল এনুরেসিস বিকাশের ক্ষেত্রে ঝুঁকির কারণসমূহ

প্রাইমারি বেডওয়েটিং –ছেলেদের মধ্যে মেয়েদের চেয়ে প্রাইমারি বেডওয়েটিং বেশি দেখা যায়। ১৫% শিশুরা প্রতি বছর বিছানা ভেজানো থেকে অল্প অল্প করে মুক্তি পেতে থাকে।

  • প্রাইমারি বেডওয়েটিংয়ের জেনেটিক কারণ রয়েছে।
  • কিছু মানুষ জেগে থাকার সময় দুর্ঘটনাক্রমে প্রস্রাব করতে পারে। এটি কিছু শারীরিক সমস্যার সাথে সম্পর্কিত হতে পারে।
  • যে সকল শিশুদের মনোযোগে ঘাটতি থাকে এবং হাইপারঅ্যাকটিভ হয়, তারা বিছানা ভেজাতে পারে।
  • যে শিশুরা অগোছানো পরিবারে বাস করে।

সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং

  • পারিবারিক সমস্যা যেমন বাবামায়ের বিবাহবিচ্ছেদ বা মৃত্যু।
  • শারীরিক নির্যাতন এবং অবহেলা
  • তাদের মধ্যে বিভ্রান্তিকর উত্তেজনানামে পরিচিত একটি ব্যাধিও থাকতে পারে, যেখানে সে গভীর ঘুমের সময় ঘুম থেকে জেগে ওঠে। এটি শিশুকে একটি অদ্ভুত জায়গায় প্রস্রাব করতে বাধ্য করতে পারে। সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং যেকোন বয়সেই ঘটে।
  • রোগ নির্ণয়

এনুরেসিস সঠিকভাবে নির্ণয়ের জন্য, কারণগুলি অনুসন্ধান করার জন্য একটি সম্পূর্ণ মেডিকেল পরীক্ষা করে সম্পূর্ণ ইতিহাস নেওয়া উচিত।

  • এনুরেসিসের কারণগুলির মধ্যে মেরুদণ্ডের কর্ডের অস্বাভাবিকতা (নিউরোজেনিক মূত্রাশয়, মূত্রনালীর সংক্রমণ এবং ছেলেদের মধ্যে পোস্টেরিয়র মূত্রনালী ভালভ এবং মেয়েদের অ্যাক্টোপিক ইউরেটার) এর সাথে জড়িত থাকতে পারে। পাশাপাশি, যে শিশুরা দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং এনকোপ্রেসিসে আক্রান্ত হয় (অনিচ্ছাকৃতভাবে প্যান্টে মলত্যাগ করা)
  • শিশুর পারিবারিক ইতিহাস, জিনেটিক্স এবং চিকিত্সার ইতিহাস সম্পর্কে যত্নশীল হওয়া ও বিস্তারিত প্রশ্ন থাকা উচিত। এটি এনুরেসিসের ধরণ এবং এটির সম্ভাব্য কারণ নির্ধারণে সহায়তা করে।
  • প্রায়শই বাবামায়েরা তাদের সন্তানের বিছানা ভেজানোর অভ্যাস সম্পর্কে পুরোপুরি সচেতন হন না। পরামর্শ দেওয়া হয় যে দিনের বেলা এবং রাতে শিশুটি কতবার বিছানা ভিজিয়ে ফেলে তা খতিয়ে দেখার জন্য তারা একটি ডায়েরি বজায় রাখুন।
  • শিশুটির শারীরিক পরীক্ষা করতে হয়। তবে চিকিত্সকের অন্য যে কোন সমস্যা যা বিছানায় প্রস্রাবের কারণ হতে পারে তা যাচাই করা দরকার।
  • ইউরিনালাইসিস করা উচিত, কারণ এটি মূত্রের যে কোন সংক্রমণকে হাইলাইট করতে সহায়তা করে। যদি ফলাফল কোন রোগ নির্দেশ করে, তবে আর ভালোভাবে ক্ষতিয়ে দেখা উচিত (সিস্টোরিথ্রোগ্রাম এবং রেনাল আল্ট্রাসাউন্ড দ্বারা)
  • বিছানা ভেজানো খুব মানসিক চাপের কারণ হতে পারে। তবে কিছু সময় পরেই এটি নিজে থেকে দূরে চলে যায়। এটি শিশুর জন্য বিব্রত ও অপরাধবোধ সৃষ্টি করে, যা মানসিক উদ্বেগের দিকে নিয়ে যায়। এই সময়ে বাবামাকে শিশুদের মানসিক সহায়তা প্রদান করা উচিত।

আপনি যদি ভাবছেন যে কোন শিশু কখন বিছানা ভেজানো বন্ধ করে দেয়, সাত বছর বয়সের আশেপাশে প্রায় ৯০% শিশুদের নিজে থেকেই বিছানা ভেজানো বন্ধ হয়ে যায়। বেশিরভাগ চিকিত্সকরা সাধারণত সাত বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য বিছানা ভেজানোর চিকিত্সার পরামর্শ দেন না। কারণ ঘুমের সময় ব্লাডার কন্ট্রোল ফাংশন বা মূত্রাশয় নিয়ন্ত্রণ হল পটি ট্রেনিংয়ের শেষ পর্যায়। সুতরাং, শিশুরা শেখার প্রক্রিয়া চলাকালীন ঘুমের সময় বিছানা ভিজিয়ে দিতে পারে।

 

নক্টারনাল এনুরেসিস বিকাশের ক্ষেত্রে ঝুঁকির কারণসমূহ

একটি শিশুর বেডওয়েটিংয়ের চিকিত্সা

শিশুর বিকাশের সময় বেডওয়েটিং স্বাভাবিক। শিশুর বিছানা ভেজানোর কয়েকটি সমাধান উল্লেখ করা হয়েছে, যা আপনি ব্যবহার করতে পারেন

শিশুদের বেডওয়েটিংয়ের জন্য কিছু হোমোওপ্যাথিক প্রতিকার রয়েছে, যা নিরাপদ, হালকা এবং বিছানা ভেজানোর চিকিত্সা করতে সহায়তা করে:

  • কস্টিকাম

এই প্রতিকারটি যে শিশুদের জন্য কার্যকর হতে পারে, যারা বিছানা ভেজায়, বিশেষত যখন তারা তাড়াতাড়ি ঘুমায়।

  • ক্রেয়োসোটাম

এই প্রতিকারটি যে শিশুরা প্রস্রাবের তাড়না অনুভব করার সাথে সাথে খুব শীঘ্রই ওয়াশরুমে যেতে পারে না, তাদের জন্য ব্যবহার করা হয়। এই ধরণের শিশু তাড়নার কারণে জেগে ওঠে, তবে প্রস্রাব ধরে রাখতে পারে না বা স্বপ্ন দেখে যে সে প্রস্রাব করছে এবং বিছানা ভিজিয়ে ফেলে।

  • লাইকোপোডিয়াম

যে শিশু তার ঘুমের সময় অনৈচ্ছিকভাবে প্রস্রাব করার সময় সে প্রচুর পরিমাণে পরিষ্কার প্রস্রাব করে, তাদের জন্য এই প্রতিকার কাজ করে। এই রোগীদের মিষ্টি এবং গরম পানীয়ে লোভ থাকে।

  • পালসাটিলা

যে শিশু অনৈচ্ছিক বা অনিয়ন্ত্রিত প্রস্রাবে ভুগছে তাদের জন্য এই প্রতিকার। বসে থাকার সময়, হাঁটার সময় ও রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে ফেলে।

  • সেপিয়া

যে শিশুর প্রায়শই তার বেশিরভাগ সময় মূত্রথলির প্রতি মনোনিবেশ করে থাকে অথবা সে প্রস্রাব করে ফেলে, তার জন্য এই প্রতিকার কাজ দেয়। এই শিশুরা ঘুমাতে যাওয়ার সাথে সাথেই বিছানা ভিজিয়ে ফেলে।

শিশুদের জন্য বেডওয়েটিং অ্যালার্ম রয়েছে, এটিও সহায়ক হিসাবে প্রমাণিত হতে পারে।

শিশুর মূত্রাশয় ব্যায়াম (পেশী শক্তিশালীকরণ এবং মূত্রাশয় প্রসারিত করে) শেখানো প্রস্রাব করা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং মূত্রাশয়ের ক্ষমতা বাড়াতে পারে। শিশুকে প্রায় ৫১০ সেকেন্ডের জন্য শ্রোণী পেশী শক্ত করা এবং তারপরে পাঁচ সেকেন্ডের জন্য শিথিল করা উচিত। ব্যায়ামটি প্রতিদিন তিনবার পুনরাবৃত্তি করা উচিত। আপনার শিশুর প্রস্রাবের তাড়না উঠলে তাকে ওয়াশরুমে যাওয়ার জন্য উত্সাহ দেওয়া উচিত। এটি শিশুকে দিনের বেলা বিছানা ভেজানো এড়াতে এবং রাতে প্রস্রাব করার ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস করতে সহায়তা করবে। মূত্রাশয়টি প্রস্রাবের বর্ধিত পরিমাণ ধারণ করতে প্রশিক্ষিত হবে।

যদি আপনার শিশু কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগে তবে আপনার ডাক্তার মল নরম করার পরামর্শ দিতে পারেন।

কখনও কখনও, বিছানা ভেজানোর চিকিৎসার জন্য অস্ত্রোপচার প্রয়োজন হতে পারে।

ওষুধের মাধ্যমে চিকিত্সা তখন ব্যবহার করা হয় যেখন আচরণগত চিকিত্সা কার্যকর হিসাবে প্রমাণিত হয় না

  • ডেসমোপ্রেসিন অ্যাসিটেট
  • অক্সিবিউটেনিন ক্লোরাইড
  • হায়োসাইসামিন সালফেট
  • ইমিপ্রামাইন।

মৌখিক অ্যান্টিবায়োটিকগুলি নির্ধারিত হয় যখন মূত্রনালীর সংক্রমণের কারণে বেডওয়েটিং হয়, যেমন

  • ব্যাকট্রিয়াম
  • এমোক্সিসিলিন
  • ম্যাক্রোবিড
  • লেভাকুইন।

শিশুদের মধ্যে বেডওয়েটিং রোধ করার জন্য জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলি

শৈশবে থাকা এই ঘটনাটি ধীরে ধীরে হ্রাস পাবে তা নিশ্চিত করার জন্য কয়েকটি জীবনযাত্রার পরিবর্তন রয়েছে:

  • শিশুর তরল গ্রহণের পরিমাণ (তরল গ্রহণের সীমাবদ্ধ) বাবামায়ের নিরীক্ষণ করা উচিত; দিনের বেলায় তার বেশি তরল পান করা উচিত এবং রাতে কম। তরল গ্রহণের পরিমাণ সীমিত করে বিছানা ভেজানো নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
  • ঘুমানোর আগে এবং শোবার সময়ের শুরুতে শিশুকে প্রস্রাব করার জন্য উত্সাহ দেওয়া উচিত। আপনার জোর দেওয়া উচিত যে রাতেরবেলা ওয়াশরুম ব্যবহার করা ঠিক। নাইট লাইট ব্যবহার করা যেতে পারে যাতে শিশুটি টয়লেটের পথ খুঁজে পায়।

শিশুদের মধ্যে বেডওয়েটিং রোধ করার জন্য জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলি

  • শিশুকে নিয়মিত বিরতিতে (২ ঘন্টা অন্তর) বা প্রায়শই তাড়না বোধ করা এড়াতে যথেষ্ট বার টয়লেট ব্যবহার করতে উত্সাহিত করা উচিত।
  • বিছানা ভেজানোর কোন ঘটনা ঘটলে বাবামাকে তার সমর্থনকারী হওয়া জরুরী। আপনি শিশুটির শীট পরিবর্তন করতে পারেন, এটি ব্যাখ্যা করে যে এটি কোন শাস্তিযোগ্য কাজ নয়। এটি সন্তানের একটি শুকনো রাত পাওয়ার ইতিবাচক শক্তিশালীকরণে কার্যকর প্রমাণিত হয়।
  • ক্যাফিনযুক্ত পানীয় এবং খাবারগুলি এড়িয়ে চলুন। ক্যাফিনযুক্ত পানীয়গুলি দিনের যে কোন সময় শিশুদের জন্য নিরুৎসাহিত করা হয়। ক্যাফিন মূত্রাশয়কে উদ্দীপিত করতে পারে বলে এটি প্রস্তাবিত হয় না।

শিশুদের বেডওয়েটিংয়ের ঘরোয়া প্রতিকার

কিছু সহজ ও সাধারণ প্রাকৃতিক প্রতিকার রয়েছে যা শিশুদের প্রতিদিনের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

  • দারুচিনি এটি শরীরকে উষ্ণ রাখে। আপনি একবারে একবারে দারুচিনি টুকরো করে চিবিয়ে খেতে পারেন। বাটার টোস্টের উপরে ছড়িয়ে দেওয়া চিনি ও দারুচিনির সংমিশ্রণটি প্রাতঃরাশে খাওয়ানো যেতে পারে।
  • আমলা বা আমলকি আমলা বিছানা ভেজানোর ক্ষেত্রে খুব কার্যকর প্রতিকার হিসাবে বিবেচিত হয়। চূর্ণ করা এবং বীজ বের করা আমলা এক চা চামচ মধুতে এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে শিশুকে দেওয়া যেতে পারে।

শিশুদের বেডওয়েটিংয়ের ঘরোয়া প্রতিকার

এক চিমটি গোলমরিচের সাথে এক চা চামচ আমলার শাঁস মিশিয়ে দেওয়া যায়।

  • অলিভ অয়েল ম্যাসাজ: কয়েক মিনিট ধরে উষ্ণ অলিভ তেল দিয়ে পেটে মালিশ করা বিছানা ভেজানোর আরও একটি প্রতিকার।
  • ক্র্যানবেরি জুস: বিছানা ভেজানোর সমস্যাযুক্ত শিশুদের জন্য ক্র্যানবেরি জুস দেওয়া বাঞ্ছনীয়। মূত্রাশয় এবং মূত্রনালীর জন্য এটি ভাল। আপনার শিশুকে কয়েক সপ্তাহের জন্য ১ কাপ ক্র্যানবেরি জুস দেওয়া যেতে পারে। যদি মূত্রনালীর সংক্রমণের কারণে বেডওয়েটিং হয় তবে আপনি আপনার শিশুকে দিনে তিনবার ১.৫ কাপ রস দিন।
  • আখরোট ও কিশমিশ: আখরোট ও কিশমিশও শিশুকে স্ন্যাক হিসাবে দেওয়া যেতে পারে। দুইটি আখরোট এবং পাঁচটি কিশমিশ খবার খাওয়ার আগে শিশুকে দেওয়া উচিত। এটি বিছানায় প্রস্রাব করা বন্ধ করতে সহায়তা করে।

উপরে উল্লিখিত সমস্ত ওষুধ, জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং ঘরোয়া প্রতিকারগুলি নক্টারনাল এনুরেসিস বা বিছানা ভেজানোর সমস্যা পরিচালনায় সহায়তা করতে পারে।

বেডওয়েটিং সম্পর্কে কয়েকটি তথ্য

বেডওয়েটিং সম্পর্কিত কয়েকটি তথ্য এখানে সহায়তা করতে পারে:

  • ৫ বছরের বাচ্চাদের ১৫% বা প্রথম শ্রেণির প্রায় ৩% বাচ্চারা প্রতি রাতে শুকনো থাকে না।
  • ৮৫% বাচ্চার কোনও চিকিত্সা ছাড়াই বিছানা ভেজানো বন্ধ হয়ে যায়।
  • কিশোর বয়সে, শুধুমাত্র ২%-% শিশুরা তাদের বিছানা ভেজাতে থাকে।
  • বিছানা ভেজানোর ক্ষেত্রে ছেলেদের ও মেয়েদের অনুপাত ৪:১।

উপসংহার

যে শিশুর বিছানা ভেজানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে তার বাবামা বিভ্রান্ত ও হতাশ বোধ করতে পারেন। সুতরাং, আপনার শিশু বিশেষজ্ঞের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা এবং আপনার শিশুকে আলোচনায় অন্তর্ভুক্ত করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি সন্তানের প্রতি আত্মবিশ্বাস জাগাতে সাহায্য করে যে তাদের পারিবারিক সমর্থন রয়েছে, যা তাদের আরামদায়ক করে তোলে এবং তারা চিকিত্সার প্রতি ভাল সাড়া দেয়।